আকাশের জবানিতে বেরিয়ে আসছে রাঘববোয়ালদের নাম - বাংলা একাত্তর আকাশের জবানিতে বেরিয়ে আসছে রাঘববোয়ালদের নাম - বাংলা একাত্তর

মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন

আকাশের জবানিতে বেরিয়ে আসছে রাঘববোয়ালদের নাম

আকাশের জবানিতে বেরিয়ে আসছে রাঘববোয়ালদের নাম

চাঞ্চল্যকর তথ্য দিচ্ছেন রাজধানীর শাহজাহানপুরে জোড়া খু’নের ঘটনায় গ্রে’ফতার মাসুম মোহাম্ম’দ ওরফে আকাশ। তার জবানিতে বেরিয়ে আসছে অনেক রাঘববোয়ালের নাম। তাদের কেউ কা’রাব’ন্দি, কেউ বা বিদেশ প’লাতক শীর্ষ স’ন্ত্রাসী। কিন্তু এখনই তার দেওয়া সব তথ্য আমলে নিচ্ছেন না ত’দন্তসংশ্লিষ্টরা। তাঁরা বলেছেন, আকাশের দেওয়া প্রতিটি তথ্যই সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে নানাভাবে যাচাই-বাছাই করছেন।

জ’ড়িত থাকার প্রকৃষ্ট প্রমাণ পাওয়ার পরই তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। তবে আকাশের প্রধান সহযোগী মোটরসাইকেল চালক ও অ’স্ত্র সরবরাহকারীকে গ্রে’ফতারে সর্বোচ্চ শক্তি প্রয়োগ করেছেন তাঁরা। এদিকে, জাহিদুল ইসলাম টিপু হ’’ত্যার অন্যতম কারণ যে আধিপত্য নিয়ন্ত্রণ তা এরই মধ্যে তাঁরা নিশ্চিত হয়েছেন। অন্যদিকে ত’দন্ত সংস্থা ঢাকা মহানগর গো’য়েন্দা (ডি’বি) পুলিশের বাইরেও নৃ’শংস এ ঘটনা নিয়ে একাধিক সংস্থা মাঠে কাজ করছে। এ ছাড়া আকাশকে জি’জ্ঞাসাবাদের জন্য গতকাল আ’দালতের নির্দেশে সাত দিনের রি’মান্ডে নিয়েছেন ত’দন্ত কর্মকর্তা।

ডি’বির মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) রিফাত রহমান শামীম বলেন, ‘প্রাথমিক জি’জ্ঞাসাবাদে আকাশ নিজেই গু’লি করেছেন বলে আমাদের কাছে স্বীকার করলেও কার নির্দেশে, কী কারণে এ হ’’ত্যাকান্ড সংঘটিত করেছেন সেসব বি’ষয়ে সন্তোষজনক উত্তর দেননি। শুধু মা’মলা থেকে অব্যাহতির কারণে এ মিশনে অংশ নেন বলে দাবি করলেও তা যৌক্তিক মনে হয় না। তাকে আরও জি’জ্ঞাসাবাদ প্রয়োজন। এ ছাড়া মোটরসাইকেল চালক ও অ’স্ত্র সরবরাহকারীকে গ্রে’ফতার করা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।’

একাধিক সূত্র বলছেন, শুটার মাসুম মোহাম্ম’দ আকাশ কেন, কার নির্দেশে হ’’ত্যা করেছেন সেসব বি’ষয়ে জি’জ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। উত্তরে যেসব তথ্য দিয়েছেন সেসব বিশ্বাসযোগ্য মনে হয়নি কর্মকর্তাদের। তাঁরা জানতে পেরেছেন রিয়াজ মিল্কি হ’’ত্যাকান্ডের পর থেকে দলে এবং এলাকায় প্রভাব হা’রিয়ে ফে’লেন নি’হত টিপু। অনেকটা একঘরে হয়ে যান। তবে সবশেষ নির্বাচনের আগে দলীয় হাইকমান্ডের নির্দেশে তৎকালীন প্রভাবশালীরা কেবল লোক দেখানোর জন্যই কিছুদিন তাকে গুরুত্ব দিয়েছিলেন। বিভিন্ন মিছিল-মিটিংয়ে সামনের কাতারে স্থান দিতে বা’ধ্য হয়েছেন।

তবে নির্বাচনের পরই টিপুকে আগের অবস্থানে ঠেলে দেওয়া হয়। আবারও একঘরে করে রাখা হয়। নিজের কর্মীরাও তাকে এড়িয়ে চলতেন। কিন্তু ক্যা’সিনো অ’ভিযান টিপুর জন্য আশীর্বাদ হয়ে আসে। ম’রে যাওয়া গাছে রীতিমতো পাতা গজাতে শুরু হয়। দলে এবং এলাকায় আবারও গুরুত্ব বাড়তে থাকে তার। মতিঝিল আওয়ামী লীগে আগামীর কাউন্সিলে নিজেকে সভাপতি প্রার্থী হিসেবে ঘোষণাও দিয়েছিলেন। টিপুর কারণে যারা ক্ষ’তিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের প্রতিটি কর্মকান্ডের ত’দন্ত করছেন সংশ্লিষ্টরা।আকাশের দেওয়া তথ্যের সঙ্গে অনেকটাই মিল পেয়েছেন তাঁরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গো’য়েন্দা কর্মকর্তা আ’শঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, যেহেতু কাটআউট সিস্টেমে এ হ’’ত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছে, কাজেই পরবর্তী ধাপগুলোয় যারা রয়েছেন তাদের জীবনহানির শঙ্কা রয়েছে। এ নিয়েও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের জন্য বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন। যাতে পরবর্তী ধাপের অ’পরাধীরা মূল পরিকল্পনাকারীর মাধ্যমে আ’ক্রান্ত না হন।

তিনি আরও বলেন, মতিঝিলের আধিপত্যের দ্ব’ন্দ্বে খু’ন হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা টিপু আর খু’ন করেছেন গোড়ান এলাকার বাসিন্দা। এ হ’’ত্যার পেছনে অনেক শক্তিশালী ব্যক্তি রয়েছেন। যারা পরিকল্পিতভাবে এ হ’’ত্যার ছক তৈরি করে শুটার আকাশসহ অনেককেই ব্যবহার করেছেন, যার কারণে মোটিভ নিশ্চিত হওয়ার জন্য হ’’ত্যায় ব্যবহৃত মোটরসাইকেল চালক, মোটারসাইকেল ও অ’স্ত্র সরবরাহকারীকে শনাক্ত ও গ্রে’ফতার গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। এ দুই ব্যক্তিকে গ্রে’ফতার করতে পারলে পেছনে থাকা তৃতীয় স্তরের পরিকল্পনাকারীদের সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যাবে। তার পরই হ’’ত্যার মোটিভ জানা যাবে।

জানা গেছে, আকাশ আন্ডারওয়ার্ল্ডের অন্যতম নিখুঁত শুটার। ১৬-১৭ বছর বয়স থেকেই তিনি অ’স্ত্র চালনায় পারদর্শী। ২০০৭ সালে সবুজবাগ থানা ছাত্রদল নেতা শরীফ হ’’ত্যা মা’মলার অন্যতম আ’সামি আকাশ। পরে কাকরাইল কর্ণফুলী মার্কে’টের সামনে ছাত্রদল নেতা হাবিব হ’’ত্যাচেষ্টার ঘটনায় সম্মুখ সারিতে ছিলেন। আরেক ছাত্রদল নেতার ভাড়াটে হয়ে তিনি হাবিবকে গু’লি করতে গিয়েছিলেন বলে ত’দন্তে উঠে এসেছিল।

তার বি’রুদ্ধে অন্তত চারটি মা’মলার তথ্য রয়েছে। এই শুটারের সঙ্গে প্রায় ১৫ বছর ধরে তার পরিবারের সদস্যদের যোগাযোগ নেই। স্বল্প ও মিষ্টভাষী এই শুটার নিজেকে সব সময় হাইড করে রাখতে পছন্দ করেন। বয়োজ্যেষ্ঠদের সব সময় মান্য করে চলেন। তাকে যারা চেনেন সবাই নম্র-ভদ্র হিসেবেই মনে করেন। তিনি মূলত মতিঝিলকেন্দ্রিক আন্ডারওয়ার্ল্ডের অন্যতম শুটার। টিপুকে হ’’ত্যার আগের দিন তিনি তার স্ত্রীকে বলেছিলেন পাঁচ-সাত দিন বাসায় যাবেন না। হ’’ত্যাকান্ডের পর সিসিটিভি ফুটেজ দেখে তার স্ত্রীই তাকে শনাক্ত করেন। তারপর তার বি’ষয়ে তথ্য পান। ডি’বির কর্মকর্তারা রবিবার পুলিশের সহায়তায় বগুড়ার একটি অখ্যাত আবাসিক হোটেল থেকে গ্রে’ফতার করেন তাকে।

সূত্র বলছেন, নিখুঁত পরিকল্পনায় টিপু হ’’ত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছে। কাটআউট পদ্ধতিতে অন্তত চার স্তরের লোকজন জ’ড়িত। প্রথম স্তরে রয়েছেন শুটার মাসুম মোহাম্ম’দ আকাশ ও অ’জ্ঞাত মোটরসাইকেল চালক। দ্বিতীয় স্তরে আছেন অ’স্ত্র ও মোটরসাইকেল সরবরাহকারী। তৃতীয় স্তরে সমন্বয়কারী। আর সবশেষ চতুর্থ স্তরে মূল পরিকল্পনাকারী বা মাস্টারমাইন্ড।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com