শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৭:১৫ অপরাহ্ন

ঋ’ণ প’রিশোধ করতে না পারায় ১ বছরের শি’শুকেও হা’জতবাস করাল এ’নজিও

ঋ’ণ প’রিশোধ করতে না পারায় ১ বছরের শি’শুকেও হা’জতবাস করাল এ’নজিও

রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজে’লার মাড়িয়া গ্রামের আব্দুস সালাম তার স্ত্রী নিলুফা খাতুনের নামে বেস’রকারি ঋ’ণ দান সংস্থা ‘বীজ’ এনজিও থেকে গতবছর এক লাখ টাকা ঋ’ণ নিয়েছিলেন। বৈশ্বিক ম’হামা’রি ক’রোনাকালীন সময়ে কাজ না পেয়ে আব্দুস সালামের সংসারে অভাব অনটন দেখা দেয়। এ কারণে কিস্তির টাকা বকেয়া পড়ে যায় এনজিওর কাছে।

স’রকারের তরফ থেকে ক’রোনাকালীন সময়ে কিস্তির টাকা আদায়ে বিরত থাকার জন্য এনজিওগুলোকে নির্দেশ দিলেও স’রকারের সেই নির্দেশনা মোটেও আমলে নেয়নি এনজিও বীজ। ঋ’ণ খেলাপি দেখিয়ে আব্দুস সালামের স্ত্রীর নামে মা’মলা দা’য়ের করে এনজিওটি।

ওই মা’মলায় আ’দালত আব্দুস সালামের স্ত্রীর নামে গ্রে’ফতারি পরোয়ানা জারি করেন। রোববার রাতে দুর্গাপুর থানার পুলিশ আব্দুস সালামের স্ত্রীকে গ্রে’ফতার করে থানায় নিয়ে যায়। সঙ্গে যেতে হয় এক বছর বয়সী শি’শুটিকেও।

মাত্র এক বছর বয়সে অবুঝ শি’শুটিকে হাজতে যেতে হবে তা হয়ত কখনোই ভাবেননি শি’শুটির মা-বাবা। এনিয়ে সোমবার দিনভর দুর্গাপুর সদরে চলে নানা আলোচনা সমালোচনা। এনজিওর মানবিকতা নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝেও তীব্র ক্ষো’ভের সঞ্চার হয়েছে।

গ্রে’ফতারকৃত নিলুফা বেগমের স্বামী আব্দুস সালাম জানান, সাংসারিক নানা দায়দেনার কারণে প্রায় দুই বছর আগে দুর্গাপুর উপজে’লা থেকে পরিচালিত ‘বীজ’ নামক এনজিও থেকে নিলুফা বেগমের নামে মাসিক কিস্তিতে একলাখ টাকা ঋ’ণ নেন। ঋ’ণ নেয়ার পর থেকে নিয়মিতভাবে এনজিওর মাস্টারের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা মাসিক কিস্তি পরিশোধ করতে থাকেন।

একদিকে ঋ’ণের বোঝা আরেক দিকে সংসারের ঘানি। সবই অর্থ ছাড়া অনর্থ। এনজিওর কিস্তির টাকার জোগাড় করতে অতিরিক্ত পরিশ্রম ও মা’নসিক টেনশনের ফলে হৃদরো’গে আ’ক্রান্ত হয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপতালে ভর্তিও হতে হয় সালামকে। হাসপাতালে প্রায় দেড়মাস চিকিৎসাধীন থাকেন আব্দুস সালাম।

জমানো কিছু টাকা, প্রতিবেশীদের কাছে সাহায্য-সহযোগিতা নিয়েও চিকিৎসার টাকা জোগাড় হয়নি। আবারও কয়েকজনের কাছ থেকে ঋ’ণ নিতে হয় তাকে। পরে সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফেরেন তিনি।

কিন্তু বাড়িতে ফেরা মাত্রই এনজিওর কর্মী ও ম্যানেজার মহিরুল ইসলাম এসে কিস্তির টাকার জন্য চা’প প্রয়োগ করেন। সেইসঙ্গে হু’মকি দেন দ্রুত টাকা পরিশোধ না করলে মা’মলা করে জে’লের ভাত খাওয়াবে।

এনজিওর কিস্তি দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন আব্দুস সালাম। এতে ক্ষি’প্ত হয়ে ‘বীজ’ এনজিওর দুর্গাপুর শাখার ব্যবস্থাপক মহিরুল ইসলাম আব্দুস সালামের স্ত্রী নিলুফার বেগমের জমা রাখা জনতা ব্যাংকের চেক ডিজনার করে নিলুফা বেগমকে আসামী করে রাজশাহী চিফ জু’ডিশিয়াল আ’দালতে মা’মলা করেন।

এ বি’ষয়ে ‘বীজ’ এনজিওর দুর্গাপুর শাখার ব্যবস্থাপক মহিরুল ইসলামের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি জানান, যা করা হয়েছে এনজিওর মালিক ও দেশের আইনের নির্দেশনা অনুযায়ী করা হয়েছে। এর বেশি কিছু বলার নেই।

এ বি’ষয়ে দূর্গাপুর থানার পরিদর্শক (ত’দন্ত) হাশমত আলী বলেন, আ’দালত থেকে গ্রে’ফতারি পরোয়ানা আসায় পুলিশ তাকে গ্রে’ফতার করে। তবে আ’সামির এক বছরের দুধের শি’শু থাকায় পুলিশ আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে গ্রে’ফতারের পর শি’শুকন্যাসহ আ’সামি নিলুফা বেগমকে রাতে থানা হাজতে না রেখে অফিসারদের ডিউটি কক্ষে। পরে সকালে আ’দালতের মাধ্যমে জে’লহাজতে পাঠানো হয়।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com