রীতা থেকে হয়ে ওঠেন পূর্ণিমা, ৪১ বছর বয়সেও তরুণদের ক্রাশ তিনি

| আপডেট :  ১১ জুলাই ২০২২, ১১:১০ অপরাহ্ণ | প্রকাশিত :  ১১ জুলাই ২০২২, ১০:৫৮ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশের চলচ্চিত্র অঙ্গনের নন্দিত অভিনেত্রী পূর্ণিমা। ১৯৯৭ সালে নবম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত অবস্থায় জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত এ জীবন তোমার আমার চলচ্চিত্রের মাধ্যমে বাংলাদেশর চলচ্চিত্র অঙ্গনে যাত্রা শুরু হয় তার।

সুন্দর চেহারার অধিকারিণী এই অভিনেত্রী চলচিত্র জগতে আগমনের পরপরই অভিনয় এর পাশাপাশি অসাধারণ শারীরিক সৌন্দর্যের জন্য সবার মন জয় করে নেন। বিশেষ করে মিস ডায়না ও কাল্লু মামা ছায়াছবিতে বেশ খোলামেলা পোশাকে হাজির হয়ে দর্শক ও সমালোচকদের দৃষ্টি কাড়েন।

প্রায় দুই দশকের অভিনয় ক্যারিয়ারে পূর্ণিমা অসংখ্য ব্যবসা সফল সিনেমা উপহার দিয়েছেন যার মধ্যে অধিকাংশই ছিলো অভিনেতা রিয়াজের বিপরীতে। সংখ্যার হিসেবে রিয়াজের সাথে তার ২৩ টি চলচ্চিত্র মুক্তি পেয়েছে।

তবে ২০১৮ এর পরে এই অভিনেত্রীকে নতুন কোনো সিনেমায় আর দেখা যায় না। যদিও ভক্তদের নিকট এখনও সমান জনপ্রিয় তিনি। বিশেষত তরুণ প্রজন্মের নিকট এখনও তিনি ‘ক্রাশ গার্ল’। পূর্নিমা প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক শিক্ষার্থী মো: আশরাফুল আলম বলেন,‘পূর্ণিমাকে বলা যায় চিরযৌবনা একজন অভিনেত্রী যার বয়স চল্লিশ পার হলেও এখনও অষ্টাদশী তরুণী মনে হয়। তার অভিনীত চলচ্চিত্র দেখার খুব একটা সুযোগ না হলেও তার সৌন্দর্যের কারণে তিনি আমাদের তরুণদের নিকট ‘ক্রাশ গার্ল’ হয়ে উঠেছেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৮১ সালের ১১ জুলাই জন্মগ্রহণ করেন চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে জন্মগ্রহণ করেন পূর্ণিমা। তার আসল নাম দিলারা হানিফ রীতা। অভিনয় জগতে এসে পূর্ণিমা নাম গ্রহণ করেন। কাজী হায়াৎ পরিচালিত ওরা আমাকে ভাল হতে দিল না সিনেমায় অভিনয় করে ২০১০ সালে সেরা অভিনেত্রীর পুরষ্কার লাভ করেন এই অভিনেত্রী। ব্যক্তিগত জীবনে ২০০৭ সালের ৪ নভেম্বর পারিবারিকভাবে আহমেদ জামাল ফাহাদকে বিয়ে করেন। পূর্ণিমা। ২০১৪ সালের ১৩ এপ্রিল এই দম্পতির প্রথম কন্যা সন্তান আরশিয়া উমাইজা জন্মগ্রহণ করেন।