‘মামা আমার মেয়েটার মুখ আর দেখা হলো না’

| আপডেট :  ৫ জুন ২০২২, ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ | প্রকাশিত :  ৫ জুন ২০২২, ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ

‘আমার শরীর পু’ড়ে গেছে। আমি হয়তো আর ফিরব না। আমার কলিজা মেয়েটার মুখ আর দেখা হবে না মামা। তুমি একটু দেখে রাখিও।’ মৃ’ত্যুর আগে মামা মির হোসেনকে ফোন করে এসব কথা বলেছিলেন কুমিরা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নার্সিং অ্যাটেনডেন্ট কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান (৩২)। তিনি শনিবার (৪ জুন) রাত ৯টার দিকে সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোর আ’গুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করতে গিয়ে মা’রা যান।

মৃ’ত্যুর আগে ভাগনের বলা কথাগুলো উচ্চারণ করে হাউমাউ করে কাঁদতে শুরু করেন মামা মির হোসেন। তার আহাজারিতে ভারী হয়ে ওঠে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিবেশ। শনিবার রাতে সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে ভ’য়াবহ বি’স্ফোরণে এখন পর্যন্ত ১৬ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে কুমিরা ফায়ার স্টেশনের নার্সিং অ্যাটেনডেন্ট কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামানও রয়েছেন। তিনি কুমিল্লার নাঙ্গলকোট থানার সাতবাড়িয়া এলাকার শামসুল হকের ছেলে।

মনিরের বড় মামা মির হোসেন সকালে হাসপাতালে এসে ভাগনের ম’রদেহ শনাক্ত করেন। মনির আট বছর আগে ফায়ার সার্ভিসে কর্মজীবন শুরু করেন। গেল দুই মাস আগে তিনি কুমিরা ফায়ার স্টেশনে যোগ দেন। দুই মাস বয়সী এক কন্যাস’ন্তান রয়েছে তার।

মির হোসেন বলেন, দুদিন আগে কুমিরায় গিয়ে মনিরের সঙ্গে সারা দিন ঘুরেছি। অনেক আড্ডা দিয়েছি। সকালে ফোন করে তাকে পাচ্ছিলাম না। তাই হাসপাতালে ছুটে আসি। আমি তাকে চিনতে পেরেছি, সে আমাদের ছেড়ে চলে গেছে। কথাগুলো বলেই তিনি আবারও কা’ন্নায় ভে’ঙে পড়েন।

এদিকে, সময় যত যাচ্ছে দ’গ্ধ রো’গী আর স্বজনদের আহাজারি ততই বাড়ছে। হাসপাতালে বাড়তি রো’গীর চা’প সামলাতে চিকিৎসক, স্বা’স্থ্যসেবীর সঙ্গে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবক সংগঠনের কর্মীরা কাজ করে যাচ্ছেন।