একসঙ্গে পুলিশের ডিআইজি হলেন স্বামী-স্ত্রী - বাংলা একাত্তর একসঙ্গে পুলিশের ডিআইজি হলেন স্বামী-স্ত্রী - বাংলা একাত্তর

মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০১:০৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
ঢাকা টেস্টে দেড়শ রানের মাইলফলক মুশফিকের ভারতের রেকর্ড ভেঙ্গে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন লিটন-মুশফিক হিরো আলমকে নিয়ে বোমা ফাটালেন সদ্য তালাক দেওয়া স্ত্রী ২১ মাস পর একই কারাগারে প্রদীপ-চুমকি! দেশে রেমিট্যান্স পাঠানোর প্রক্রিয়া সহজ করলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক ব্রেকিং নিউজঃ মুশফিক লিটনকে অবিশ্বাস্য সম্মাননা দিল আইসিসি কান উৎসবে দীপিকার নেকলেসে লেখা ‘ফি-আমানিল্লাহ’! প্যারিসে ইমরানের কণসার্টে অশান্তির ঝড়, গান না করেই ছাড়তে হলো স্টেজ স্ত্রীর বড় বোনকে শয্যাশায়ী করে ভিডিও ধারন, ছোট বোনের জামাই গ্রেফতার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকের হাতে আলাদীনের চেরাগ, বাড়ি গাড়িসহ কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি
একসঙ্গে পুলিশের ডিআইজি হলেন স্বামী-স্ত্রী

একসঙ্গে পুলিশের ডিআইজি হলেন স্বামী-স্ত্রী

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) যুগ্ম কমিশনার পদে কর্মরত পুলিশ কর্মকর্তা দম্পতি একসঙ্গে পদোন্নতি পেয়ে উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) হয়েছেন। এ দম্পতিসহ ডিএমপির মোট ১১ জন পুলিশ কর্মকর্তা ডিআইজি পদে পদোন্নতি পেয়েছেন।ডিএমপি জানায়, ডিআইজি পদে পদোন্নতি পেয়েছেন ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (অপারেশন্স) মো. মনির হোসেন ও তার সহধর্মিণী ডিএমপির পরিবহন বিভাগের যুগ্ম কমিশনার শামীমা বেগম।

বুধবার (১১ মে) রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের উপ-সচিব ধনঞ্জয় কুমার দাস স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে ৩২ জন পুলিশ কর্মকর্তাকে ডিআইজি পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়।সিরাজগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করা মনির হোসেন ১৯৯৯ সালের ২৫ জানুয়ারি ১৮তম বিসিএসের মাধ্যমে সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) হিসেবে বাংলাদেশ পুলিশ যোগদান করেন।

পেশাগত জীবনে দক্ষতার পরিচয় দিয়ে তিনি ডিএমপির প্রসিকিউশন বিভাগের উপ-কমিশনারসহ গোপালগঞ্জ ও নড়াইল জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া, তিনি পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। পেশাগত দক্ষতার জন্য পেয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম)।

এদিকে, মনির হোসেনের স্ত্রী শামীমা বেগম একই সালে একই বিসিএসের মাধ্যমে এএসপি হিসেবে যোগদান করেন। ডিএমপির ওমেন সাপোর্ট অ্যান্ড ইনভেস্টিগেশন বিভাগের উপ-কমিশনারসহ সিআইডি এবং পুলিশ সদর দপ্তরের গুরুত্বপূর্ণ পদে পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া তিনি অ্যাডিশনাল ডিআইজি হিসেবে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স ও পুলিশ ট্রেনিং সেন্টার টাঙ্গাইলে দায়িত্ব পালন করেছেন।

২০০৬-০৭ সালে আইভরিকোস্টে এবং ২০১০-১১ সালে সুদানে জাতিসংঘ মিশনে শান্তিরক্ষী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন শামীমা বেগম। পেশাগত দক্ষতার জন্য তিনিও পেয়েছেন প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদক (পিপিএম)। এছাড়া, শামীমা বেগম বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন নেটওয়ার্কের (বিপিডব্লিউএন) সহ-সভাপতি ও আইএডব্লিওপির রিজিয়ন-২২ এর কো-অর্ডিনেটর হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন।

ডিআইজি পদে পদোন্নতি পাওয়া ডিএমপির অন্য ৯ জন কর্মকর্তারা হলেন- অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মো. মুনিবুর রহমান, অতিরিক্ত কমিশনার (কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম) মো. আসাদুজ্জামান, যুগ্ম কমিশনার (অ্যাডমিন অ্যান্ড ডিবি-দক্ষিণ) মো. মাহবুব আলম, যুগ্ম কমিশনার (হেডকোয়ার্টার্স) মিরাজ উদ্দিন আহম্মেদ, যুগ্ম কমিশনার (লজিস্টিকস্) মঈনুল হক, যুগ্ম কমিশনার (কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম) মো. ইলিয়াছ শরীফ, যুগ্ম কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) সৈয়দ নুরুল ইসলাম, যুগ্ম কমিশনার (ক্রাইম) মো. আনিসুর রহমান, যুগ্ম কমিশনার (সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম ও ডিবি-উত্তর) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com