শিশুর ম’রদেহ আটকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে! - বাংলা একাত্তর শিশুর ম’রদেহ আটকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে! - বাংলা একাত্তর

মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৬:৪৬ পূর্বাহ্ন

শিশুর ম’রদেহ আটকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে!

শিশুর ম’রদেহ আটকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে!

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে পানিতে পড়ে আরিফা আক্তার (১৫) নামে এক শি’শুর মৃ’ত্যু হয়েছে। ওই শি’শুর ম’রদেহ দাফনে বা’ধা দিয়ে টাকা নেওয়ার অ’ভিযোগ উঠেছে এক পুলিশ সদস্যের বি’রুদ্ধে। এমন ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষো’ভ বিরাজ করেছে। উপজে’লার ভলাকুট ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।

এ ঘটনায় শি’শুর পরিবারের সদস্যরা জানান, বৃহস্পতিবার ভলাকুট ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামে ওই শি’শুর বাড়ির পাশে একটি ডোবায় পড়ে মা’রা যায়। তবে শি’শু মা’রা যাওয়ার বি’ষয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অ’ভিযোগ নেই। কিন্তু জনশ্রুতিতে জানতে পেরে চাতলপাড় পুলিশ ফাঁ’ড়ির ত’দন্তকারী কর্মকর্তা কাঞ্চন কুমার সিংহ দাফনের পূর্বমুহূর্তে ওই শি’শুর বাড়িতে পৌঁছে ম’য়নাত’দন্ত ছাড়া ম’রদেহ দাফন করা যাবে না বলে হুঁ’শিয়ারি দেন। পরে পুলিশের দাবি”কৃত টাকা দেয়ার পর ম’রদেহ দাফন করতে দেন।

নি’হতের চাচা মো. বোরহান মিয়া অ’ভিযোগ করে বলেন, বাজারে থেকে কাপনের কাপড় নিয়ে এসে দেখি বাড়িতে ৫ জন পুলিশ। তারা লা’শের ম’য়নাত’দন্ত করতে বলে। তখন আমরা বলি আমাদের স’ন্তান পানি ডুবে মা’রা গেছে। আমাদের কারো বি’রুদ্ধে কোনো অ’ভিযোগও নেই। তাহলে কেন লা’শ ম’য়নাত’দন্ত করতে হবে!

তখন চাতলপাড় পুলিশ ফাঁ’ড়ির ত’দন্তকারী কর্মকর্তা কাঞ্চন কুমার সিংহ বলেন, লা’শ ম’য়নাত’দন্ত করতে ২০ হাজার টাকা লাগে। আমাদের ১৫ হাজার টাকা দিয়ে দাও তাহলে আর কোনো স’মস্যা হবে না। সাবেক ইউপি সদস্য শাফি মাহমুদ ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিততে তার হাতে ৮ হাজার টাকা দেয়া হয় বলে জানান তিনি।

টাকার বি’ষয়ে শাফি মাহমুদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পুলিশ টাকা নেওয়ার বি’ষয়টি জানার পর আমি চাতলপাড় পুলিশ ফাঁ’ড়ির ত’দন্তকারী কর্মকর্তা কাঞ্চন কুমার সিংহকে ফোন করে বলি, পরিবারটি খুবই গরিব। আপনারাতো বিভিন্ন জায়গা থেকে অনেক টাকা কামান। এদের টাকা’টা ফেরত দিয়ে দেন। তখন ওই কর্মকর্তা টাকা ফেরত দেওয়ার আশ্বাস দেন।

অ’ভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা কাঞ্চন কুমার সিংহের দাবি, লা’শের সু’রতহাল রিপোর্টের কাগজ নাসিরনগর সদরে পাঠাতে নৌকা ভাড়া বাবদ ১ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছে। ৮ হাজার টাকা নেওয়ার অ’ভিযোগটি মি’থ্যা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জে’লা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, মো. আনিসুর রহমান (সরাইল সার্কেল) বলেন, যদি টাকা নেওয়ার বি’ষয়টি সত্য হয়ে থাকে তাহলে এটি পুলিশের জন্য ল’জ্জা এবং খুবই দুঃ’খজনক। বি’ষয়টি ত’দন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com