টিপু হ’ত্যা : নেপথ্যে থাকা একাধিক ব্যক্তির নাম গোয়েন্দা পুলিশের হাতে - বাংলা একাত্তর টিপু হ’ত্যা : নেপথ্যে থাকা একাধিক ব্যক্তির নাম গোয়েন্দা পুলিশের হাতে - বাংলা একাত্তর

রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন

টিপু হ’ত্যা : নেপথ্যে থাকা একাধিক ব্যক্তির নাম গোয়েন্দা পুলিশের হাতে

টিপু হ’ত্যা : নেপথ্যে থাকা একাধিক ব্যক্তির নাম গোয়েন্দা পুলিশের হাতে

রাজধানীর শাহজাহানপুরে আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম টিপু ও বদরুন্নেসা মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী সামিয়া আফনান প্রীতিকে গু’লি করে হ’’ত্যার ঘটনায় গ্রে’প্তারকৃত শুটার মাসুম মোহাম্ম’দ আকাশ আগে ডিশ ব্যবসায়ী ছিলেন। পরে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে টিপুকে হ’’ত্যার জন্য ভাড়া করা হয়।কন্ট্রাক্ট কিলিং মিশনের নেপথ্যে থাকা একাধিক ব্যক্তির নাম পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। জি’জ্ঞাসাবাদে তার কাছ থেকে বেরিয়ে এসেছে এই হ’’ত্যার পেছনে থাকা গুরুত্বপূর্ণ কিছু কারণ।

শুটার মাসুম ফোনে এই হ’’ত্যার প্রস্তাব পায়। অ’জ্ঞাত ব্যক্তির কথা অনুযায়ী হ’’ত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ও পি’স্তল মতিঝিলের এজিবি কলোনি থেকে সংগ্রহ করে সে। হ’’ত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে গোড়ান এলাকায় মোটরসাইকেল ও পি’স্তল রেখে আসে। গোয়েন্দা-পুলিশের জি’জ্ঞাসাবাদে মাসুম ওরফে আকাশ গোয়েন্দা পুলিশকে এসব তথ্য জানায়।রোববার (২৭ মার্চ) জয়পুরহাট-বগুড়া এলাকার মাঝামাঝি এলাকা থেকে তাকে গ্রে’প্তার করে মতিঝিল গোয়েন্দা-পুলিশ। তাকে গ্রে’প্তারে সহায়তা করে বগুড়া জে’লা পুলিশ।

প্রাথমিক জি’জ্ঞাসাবাদে মাসুম ঘটনার দায় স্বীকার করলেও এই ঘটনার জন্য সে অনুতপ্ত বলেও জানায়। পরিবার থেকে বিচ্যুত ছিল। বাবা-মা এমনকি স্ত্রীর সঙ্গেও ছিল না ভালো সম্পর্ক। সবুজবাগ এলাকায় ডিশ ব্যবসায় জড়িত ছিল। ব্যবসাও ভালোভাবে চলছিল না। এসব নিয়ে হতাশা কাজ করছিল তার ভেতর। এলাকায় স্থানীয় রাজনীতিতে জ’ড়িত থাকলেও ছিল না কোনও পদ।

গোয়েন্দারা জানতে পারেন, বিভিন্নভাবে পারিবারিক-সামাজিক ও আর্থিক হতাশাকে কাজে লাগিয়ে কাছের লোকজনই তাকে এই হ’’ত্যাকাণ্ডের জন্য ভাড়া করে। তাকে বলা হয়, এ কাজ করা হলে তার নামে থাকা ৪টি মা’মলা থেকে তাকে মুক্তি দেওয়া হবে।

মাসুম গোয়েন্দাদের আরও জানায়, হ’’ত্যাকাণ্ডের সময় রাস্তার অন্য পাশে মোটরসাইকেলে থাকা ব্যক্তির সঙ্গে কন্ট্রাক্ট কিলিং নিয়ে তার দফারফা হয়। এতে আরও যারা জড়িত ছিল তাদের অনেকের তথ্য পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। তারাও আছে নজরদারিতে। যে মোটরসাইকেলে ঘটনাস্থল থেকে মাসুম পালায়, মূলত সে মোটরসাইকেলের চালকই এই হ’’ত্যার জন্য চুক্তিবদ্ধ করে তাকে। এ কাজে ‘কাট-আউট’ পদ্ধতি বেছে নেয় তারা। এতে মূল আদেশদাতা বা একজনের সঙ্গে আরেকজনের সরাসরি কোনো যোগাযোগ থাকে না। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মাধ্যমে নির্দেশনা দেওয়া হয় শুধু। ওই মোটরসাইকেল চালককেও গ্রে’প্তারের চেষ্টা চলছে।

মাসুম গোয়েন্দাদের জানিয়েছে, ২৩ মার্চ কমলাপুরে টিপুকে হ’’ত্যার একবার চেষ্টা করেছিল। পরদিন বৃহস্পতিবার (২৪ মার্চ) মতিঝিল থেকে বাসায় ফেরার পথে রাতে তার প্রাইভেটকার অনুসরণ করতে শুরু করে। একপর্যায়ে শাহজাহানপুর রেলগেটের কাছে প্রাইভেটকারটি যানজটে পড়লে জাহিদুল ইসলাম টিপুকে লক্ষ্য করে ১২ রাউন্ড গু’লি ছোড়ে। পি’স্তলে ১২ রাউন্ড গু’লিই ছিল বলে জানিয়েছে মাসুম।

মতিঝিল ডিএমপি’র গোয়েন্দা বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) রিফাত রহমান শামীম বলেন, জি’জ্ঞাসাবাদে আরও কিছু জেনেছি। অনেকের নাম পেয়েছি। সেসব খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট আরও কয়েকজনকে গ্রে’প্তার করা হলে এ হ’’ত্যার মোটিভ পরিষ্কার হবে।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com