শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৮:০১ অপরাহ্ন

পারভীনের প্রতিটি প্রে’মের দাম ৫ লাখ থেকে ৫০ লাখ টাকা

পারভীনের প্রতিটি প্রে’মের দাম ৫ লাখ থেকে ৫০ লাখ টাকা

ট্রাভেল এজেন্সিতে বিদেশগামী বিশিষ্টজন ও গ্রামীণফোনের গ্রাহকদের তথ্য চু’রি করে বিভিন্ন ব্যক্তিকে ভ’য় দেখিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অ’ভিযোগে একটি প্রতারকচক্রকে গ্রে’প্তার করেছে পু’লিশ।বুধবার তেজগাঁও বিভাগের উপপু’লিশ কমিশনার মোহাম্ম’দ হারুন অর রশীদ এ তথ্য জানান।

গ্রে’প্তারকৃতরা হলো, চক্রের প্রধান পারভীন আক্তার নূপুর (২৮), তার বড় বোন শেফা’লী বেগম (৪০), মতিঝিলের পারফেক্ট ট্রাভেল এজেন্সির কর্মচারী শামসুদ্দোহা খান ওরফে বাবু (৪০) এবং গ্রামীণফোনের কাস্টমা’র সার্ভিস ম্যানেজার রুবেল মাহমুদ অনিক (২৭)।

পু’লিশ জানায়, এই চক্রের সদস্যরা বিভিন্ন ব্যক্তির সঙ্গে প্রে’মের অ’ভিনয় করে তাদের ফাঁদে ফেলে ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করত। সেই তথ্য পরিবারের সদস্যদের জানিয়ে দেওয়ার হু’মকি দিয়ে পাঁচ লাখ থেকে শুরু করে ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত আদায় করত।

টাকা দিতে অস্বীকার করলে নুপুরের অ’ভিভাবক হিসেবে কথা বলতেন বড়বোন শেফা’লী। বোনের সঙ্গে অ’নৈতিক স’ম্পর্কের দায়ে নারী নি’র্যাতনের মা’মলার হু’মকি দেন তিনি। সম্মানের হানির ভ’য়ে টাকা দিতে বাধ্য হতেন অনেক ভুক্তভোগী।

দৃশ্যমান কোন পেশা না থাকলওে নুপুর গুলশান এলাকার নিকেতনের একটি ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকতেন ৮০ হাজার টাকায়। আর শরীরচর্চায় মাসে ব্যয় করেন ৩০ হাজার টাকা।

ফাঁদে ফেলা ব্যক্তি স’ম্পর্কে তথ্য সরবরাহ করতেন বলে অ’ভিযোগ গ্রামীণফোন কাস্টমা’র সার্ভিস সেন্টারের কর্মী রুবেল মাহমুদ অনিকের বি’রুদ্ধে। আইনজীবী পরিচয় দানকারি ইসা নামের চক্রের এক সদস্য এখনো পলাতক রয়েছে।

এই চক্রটির মূল টার্গেট ছিলো উচ্চপদস্থ চাকরিজীবী, ধনাঢ্য ব্যবসায়ী ও শিল্পপতি। তাদের টার্গেট করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়াই ছিলো তাদের লক্ষ্য। এদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব বয়সের লোকজনই বেশি থাকত। এখন পর্যন্ত ২০-২৫ জন এ চক্রের শিকার হয়েছে বলে জানিয়েছে পু’লিশ।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com