মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০৫:০৫ পূর্বাহ্ন

মাদকাসক্ত স্বামীর নির্যাতনের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে গৃহবধূ

মাদকাসক্ত স্বামীর নির্যাতনের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে গৃহবধূ

নরসিংদীর বেলাবতে বাচ্চু মিয়া নামে এক মাদকাসক্ত স্বামীর নির্যাতনের ভয় ও আতংকে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন সামসুন্নাহার শান্তা নামে এক গৃহবধূ। এ ঘটনা উপজেলার পাটুলী ইউনিয়নের সুটুরিয়া গ্রামে।গৃহবধূ শান্তার চোখে মুখে ভয় আর আতঙ্ক। শরীরের বিভিন্ন স্থানে স্বামীর দেয়া জ্বলন্ত সিগারেটের আগুন ও কামড়িয়ে মাংস নিয়ে যাওয়ার ক্ষত। মাথায় চাপাতির আঘাত। মাদকাসক্ত স্বামীর এমন নির্মম নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচতে প্রায় ১৫ দিন ধরে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন দুই সন্তানের জননী গৃহবধূ সামসুন্নাহার শান্তা।

জানা গেছে, প্রায় ১৫ বছর আগে একই উপজেলার সুটরিয়া গ্রামের মোঃ শাহজাহান মিয়ার মেয়ে সামসুন্নাহার শান্তার বিয়ে হয় একই গ্রামের ইউনুছ মিয়ার ছেলে বাচ্চু মিয়ার সাথে। ৫ বছর আগে হঠাৎ করে নেশায় আসক্ত হয়ে পড়েন শান্তার স্বামী বাচ্চু মিয়া। প্রায়ই নেশাগ্রস্ত অবস্থায় বাড়িতে এসে নেশার টাকা ও যৌতুকের জন্য স্ত্রী শান্তাকে মারধর করে। টাকার জন্য দুই বছর ধরে শান্তার উপর অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে যায় বহুগুণে। এসব ঘটনায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সহ বেলাব থানায় একাধিকবার সালিশ হয়।

সালিশ দরবারের পর বাচ্চু মিয়া কিছুদিন ভাল থাকলেও আবারও নেশা করে স্ত্রীর উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন শুরু করে। দিনদিন স্বামী বাচ্চু মিয়ার অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে গেলে ১৫ দিন আগে স্ত্রী সামসুন্নাহার শান্তা স্বামীর মারধরের ভয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত ২ ডিসেম্বর দুপুরে স্বামী বাচ্চু মিয়া লাঠিসোটা নিয়ে একই এলাকার মিঠু, জামাল, গুলু, সুমন মিয়া সহ ১৫/২০ জন সহযোগী নিয়ে শ্বশুর বাড়িতে হামলা চালায়।

এসময় স্ত্রী শান্তাকে বাড়িতে না পেয়ে শান্তার বাবা শাহাজাহান মিয়া, মা আনোয়ারা, কলেজ পড়–য়া মেয়ে মাসুমা ও বোরহান নামে শান্তার এক আত্মীয়কে এলোপাতারি মারপিট করে আহত করে। এসময় স্বর্ণ অংলকার, নগদ টাকা সহ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। বর্তমানে গৃহবধু শান্তার মা আনোয়ারা ও বাবা শাহজাহান মনোহরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আছেন। এ ঘটনায় বেলাব থানায় হামলাকারীদের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন শান্তার বাবা শাহজাহান মিয়া।

স্ত্রী সামসুন্নাহার শান্তা বলেন, নেশার টাকা ও যৌতুকের ৫ লক্ষ টাকা বাবার বাড়ি থেকে এনে দিতে আমার স্বামী বাচ্চু মিয়া আমাকে অনেক মারধর করেছে। সে একাধিকবার আমার শরীরে গরম খুন্তির ও সিগারেটের ছ্যাকা, দাঁত দিয়ে কামড়িয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থান হতে মাংস উঠিয়ে নেয়া, দিনদুপুরে সম্পূর্ণ উলঙ্গ করে রাস্তায় বের করে দিয়েছে। আমি তার অত্যাচারের হাত থেকে বাঁচতে বাড়ি থেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছি। এ কারণে সে আমার বাড়িতে তার সাঙ্গপাঙ্গদের নিয়ে হামলা করে আমার বাবা ও মায়ের হাত ও হাতের আঙ্গুল ভেঙ্গে দিয়েছে। আমি এর বিচার চাই।

যোগাযোগ করা হলে অভিযুক্ত স্বামী বাচ্চু মিয়া ফোনে বলেন, আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে সবগুলো মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি আগে সঙ্গদোষে কিছুটা নেশা করেছি, এখন করি না। আমার স্ত্রীকে ভুল বুঝিয়ে আমার শ্বশুর বাড়ির লোকজন আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করাচ্ছে।

পাটুলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ ইফরানুল হক ভূঁইয়া জামান বলেন, বাচ্চু মিয়া বিদেশ থেকে আসার পর কিছুটা মাদকের সাথে জড়িয়ে পড়েছিল। এসব কারণে তার স্ত্রীর সাথে মনোমালিন্য ছিল। আগেও এসব ব্যাপারে একবার সালিশ করেছি। বর্তমানে বাচ্চু মিয়া নেশা ছেড়ে দিয়েছে। কিন্তু শ্বশুর বাড়িতে হামলার ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না।

বেলাব থানার ওসি মোঃ সাফায়েত হোসেন পলাশ বলেন, এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। তদন্ত চলছে। তদন্তের পর আইনী প্রক্রিয়া অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com