মঙ্গলবার, ২২ Jun ২০২১, ১১:০৮ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
গভীর রাতে দেবরকে বাসায় ডাকলেন, অতঃপর ভাবি যা করলেন!!

গভীর রাতে দেবরকে বাসায় ডাকলেন, অতঃপর ভাবি যা করলেন!!

প্রতীকী ছবি

সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার চন্ডিপুর গ্রামে অ’নৈতিক স’ম্পর্ক করতে গিয়ে ভাবির হা’তে পু’/রুষা’ঙ্গ হা’রিয়েছেন মাসুদ রানা নামের এক দেবর। ঘটনাটি ২০১৮ সালের ৬ অক্টোবর শনিবার রাত ১০টার দিকে ঘটে। আ’হত যুবককে গো’পনে চি’কিৎসা দেয়া হয়েছিল। মাসুদ রানা দেবহাটা উপজেলার বেজোরাটি গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছে’লে।

স্থানীয় চন্ডিপুর গ্রামের নাজমা খাতুনের প্রতিবেশী সবুজ আহম্মেদ বলেন, বিয়ের পর নাজমা খাতুনের স’ঙ্গে চাচাতো দেবর মাসুদ রানার স’ঙ্গে প্রে’মের স’ম্পর্ক গড়ে ওঠে। বি’য়ের প্র’লোভন দেখিয়ে নাজমা খাতুনের স’ঙ্গে শা’রীরিক স’ম্পর্ক করে মাসুদ রানা। প’রবর্তীতে বি’য়ে করতে রাজি না হওয়ায় শনিবার রাতে কৌশলে ডেকে তার পু’/রুষা’ঙ্গ কে’টে দেয় নাজমা।

এ বি’ষয়ে সখিপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য হাফিজুল ইসলাম বলেন, ৭ বছর আগে বেজোরাটি গ্রামের আব্দুর রহমানের সঙ্’গে বিয়ে হয় নাজমার। তাদের দেড় বছরের একটি ছে’লে স’ন্তান রয়েছে। কিন্তু ছে’লের চাচাতো ভা’ইয়ের স’ঙ্গে প’রকীয়া প্রে’মে লিপ্’ত হয় নাজমা। এটা নিয়ে কয়েক মাস আগে থেকেই ঝ’গড়া চলছিল তাদের।

স্থানীয়রা জানান, শনিবার বিকেলে বাবার বাড়ি দেবহাটার চন্ডিপুর গ্রামে চলে যান নাজমা। রাত ১০টার দিকে মোবাইলে ভাবির স’ঙ্গে অ’নৈতিক কাজের প্র’স্তাব দেন মাসুদ রানা। এ সময় ভাবিও তাকে রাতে বাসায় আসতে বলেন। ওইদিন গভীর রাতে বাসায় গিয়ে শা’রীরি’ক সম্’পর্ক গড়তে চাইলে দেবরের পু’/রুষা’ঙ্গ কে’টে নে’ন ভাবি।

দেবরের চি’ৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে গু’রুতর অবস্থায় রাতেই তাকে উ’দ্ধার করে কালিগঞ্জ উপজে’লার নলতা বাজারের শেরে বাংলা ক্লিনিকে ভর্তি করে। বর্তমানে সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন মাসুদ রানা।

কালিগঞ্জ উপজেলার নলতা বাজারের শেরে বাংলা ক্লিনিকের ব্যবস্থাপক সাইদুল ইসলাম সাইদ বলেন, শনিবার রাতে মাসুদ রানাকে র’ক্তা’ক্ত অবস্থায় ক্লি’নিকে আনা হয়। অবস্থা গু’রুতর হওয়ায় তাকে সাতক্ষীরা স’দর হা’সপাতালে ভর্তির পরামর্শ দিয়েছি। এ বি’ষয়ে জানতে চাইলে মাসুদ রানার বাবা রফিকুল ইসলাম বলেন, পূর্ব-শ’ত্রু’তার জে’র ধ’রে প’রিকল্পিতভাবে আমার ছে’লের এমন ক্ষ’তি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে একাধিকবার নাজমা খাতুন ও তার বাবার স’ঙ্গে যোগাযোগ করা হলে মোবাইল রিসিভ করেননি তারা। দেবহাটা থানা পুলিশের ওসি সৈয়দ আব্দুল মান্নান বলেন, বি’ষয়টি শুনেছি। কিন্তু এ নিয়ে কোনো পক্ষই আমার কাছে লিখিত অ’ভিযোগ দেয়নি।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com