দুলাভাইয়ের ঘরে শ্যালিকার লা’শ, এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছিলেন বড় বোন - বাংলা একাত্তর দুলাভাইয়ের ঘরে শ্যালিকার লা’শ, এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছিলেন বড় বোন - বাংলা একাত্তর

শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৫৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
দুলাভাইয়ের ঘরে শ্যালিকার লা’শ, এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছিলেন বড় বোন

দুলাভাইয়ের ঘরে শ্যালিকার লা’শ, এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছিলেন বড় বোন

প্রতীকী ছবি

ফরিদপুরের মধুখালীতে দুলাভাইয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার দু’দিন পর ১৪ বছর বয়সী শ্যালিকা লামিয়া ঐশীর ম’রদেহ উ’দ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজে’লার মথরাপুর প্রকল্পের বাড়ি থেকে তার ম’রদেহ উ’দ্ধার করা হয়। জানা গেছে, মৃ’ত লামিয়া উপজে’লার বাগাট ইউনিয়নের বাগাট গ্রামের ঠাকুরপাড়া এলাকার আরিফ হোসেনের মেয়ে। তার দুলাভাই আলিম বিশ্বাস মধুখালী বাজারের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কর্মচারীর কাজ করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়,গেল ৩০ নভেম্বর দুলাভাই আলিম বিশ্বাসের বাড়িতে বেড়াতে আসেন লামিয়া। তার বোন বৃষ্টি সুলতানা চলমান এইচএসসি পরীক্ষার্থী। বৃহস্পতিবার ছোট বোন ঐশীকে বাড়িতে একা রেখে উপজে’লা সদর কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে যান বৃষ্টি। তখন তার সঙ্গে দুলাভাই আলিম বিশ্বাসও যান।

এ সময় ঐশী বাড়িতে একা ছিলেন। পরীক্ষা শেষে বাড়িতে ফিরে ঘরের ভেতর থেকে দরজা-জানালা বন্ধ দেখে তারা অনেক ডাকাডাকি করতে থাকেন। পরে ঘরের জানালা ভে’ঙে ভেতরে গিয়ে তাকে ঝু’লন্ত অবস্থায় দেখা যায়। প্রতিবেশীর সহযোগিতায় ম’রদেহ নামিয়ে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ ম’রদেহ উ’দ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এ ব্যাপারে লামিয়া ঐশীর বড় বোন বৃষ্টি সুলতানা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘কারও সঙ্গে কোনো রাগারাগি, ঝ’গড়াঝাঁটি কিছুই হয়নি। পরীক্ষা দিতে যাওয়ার আগে তাকে ভালোভাবে রেখে যাই। বাড়িতে এসে ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ অবস্থায় ঘরের ভেতর ঝু’লন্ত অবস্থায় তার ম’রদেহ দেখতে পাই।’

বি’ষয়টি নিয়ে মধুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটা একটি আত্মহ’’ত্যা। তবে এখনো সঠিক কারণ উদঘাটন সম্ভব হয়নি। ত’দন্ত চলছে। কোনো ক্লু পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com