আ’ঘাতে প্রস্রাব ও বমি করে ফেলেন আবরার! - বাংলা একাত্তর আ’ঘাতে প্রস্রাব ও বমি করে ফেলেন আবরার! - বাংলা একাত্তর

রবিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:২৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
j z y x w u t s s r
আ’ঘাতে প্রস্রাব ও বমি করে ফেলেন আবরার!

আ’ঘাতে প্রস্রাব ও বমি করে ফেলেন আবরার!

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) আবাসিক হলে শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ রাব্বীকে (২২) নি’র্মমভাবে পি’টিয়ে হ’’ত্যা করা হয়েছিল। ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর রাতের সে ঘটনার পৈ’শাচিকতায় বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছিল দেশবাসী। হ’’ত্যাকাণ্ডের দুই বছর এক মাস ২২ দিন পর আজ রোববার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১-এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামান সেই হ’’ত্যা মা’মলার রায় ঘোষণা করবেন। অ’ভিযোগপত্রে বলা হয়, পে’টানোর সময় আ’সামিরা আবরারের মোবাইল পরীক্ষা করে

ছাত্রশিবির সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া গেছে বলে আবারও স্ট্যাম্প দিয়ে তাকে আ’ঘাত করে মনিরুজ্জামান মনির। উপস্থিত অন্য আ’সামিরাও আবরারকে প্রচণ্ড মা’রধর করতে থাকে। একপর্যায়ে আবরার ফাহাদ বমি ও প্রস্রাব করে ফে’লেন। আবরার কথা বলতে না পারলেও ইশারায় তাঁর প্রা’ণভিক্ষা চান এবং আর মা’রধর না করতে অনুরোধ করেন। পরে আ’সামিরা আবরারকে বাথরুমে নিয়ে পরিষ্কার করে পোশাক বদলে দেয়। এ সময় ইফতি মোশারফ সকাল ও মেহেদী হাসান রবিনের

হুকুমে এ এস এম নাজমুস সাদাত, শামীম বিল্লাহ, আকাশ হোসেন, মুয়াজ আবু হুরাইরা, জেমিসহ আরও কয়েকজন আবরারকে ধরাধরি করে ২০০৫ নম্বর কক্ষে নিয়ে যায় এবং জাহিদ হাসান জনিকে ডেকে মোশাররফ সকাল ২০১১ নম্বর কক্ষ পরিষ্কার করিয়ে নেয়। অ’ভিযোগপত্রে বলা হয়, আবরার ফাহাদকে ২০০৫ নম্বর কক্ষে নেওয়ার পর আবারও জেরা করা শুরু হয় এবং জানতে চাওয়া হয়, বুয়েটে কে কে ছাত্রশিবির করে। কিন্তু আবরার তখন প্রায় সংজ্ঞাহীন। এ সময় রবিনকে আবু হুরাইরা, অমর্ত্য ইসলাম, মেহেদী হাসান বলেন, আবরারকে হাসপাতালে নিতে হবে। কিন্তু রবিন বলেন, ও (আবরার) নাটক

করছে। শিবির চিনস না, শিবির চেনা ক’ষ্ট। পরে আরও মা’রধরের পর ৬ অক্টোবর দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে মুয়াজ আবু হুরায়রা, ইফতি মোশারফ সকাল, মুজাহিদুল ইসলাম, খন্দকার তাবাককারুল ইসলাম তানভীর ও হোসেন মোহাম্ম’দ তোহা একটি তোশকে করে আবরারকে থেকে বের করে নিয়ে দ্বিতীয় তলায় ওঠার সিঁড়ির ল্যান্ডিংয়ে রেখে দেন। এর মধ্যেই মৃ’ত্যুর কোলে ঢলে পড়েন আবরার। কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে আ’সামিরা আবরারকে হাসপাতালে পাঠানোর জন্য বুয়েটের চিকিৎসক ও অ্যাম্বুলেন্স ডাকে। চিকিৎসক এসে আবরারকে মৃ’ত ঘোষণা করেন।

মা’মলার ত’দন্ত কর্মকর্তা অ’ভিযোগপত্রে আরও উল্লেখ করেন, আ’সামিরা যোগসাজশে একে অন্যের সহায়তায় ছাত্রশিবির স’ন্দেহে আবরারের বি’রুদ্ধে মি’থ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন অ’ভিযোগ এনে তাঁকে নিষ্ঠুরভাবে পি’টিয়ে হ’’ত্যা করে। তাঁকে হ’’ত্যার পর খু’নের আলামত ক্রিকেট স্ট্যাম্প, তোশক, বালিশ, ল্যাপটপ, মোবাইল ও স্টিলের পুরাতন চা’পাতি শেরে বাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষ থেকে এবং সিঁড়ির ল্যান্ডিং স্থান থেকে সরিয়ে নিয়ে একই হলের ২০১০ নম্বর রুমে রেখে দেন। ওই কক্ষে থাকতেন আরেক আ’সামি মুহতাসিন ফুয়াদ।

মা’মলার বিবরণে জানা যায়, আবরার ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষে পড়তেন। ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর দিবাগত রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের একটি কক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাঁকে পি’টিয়ে হ’’ত্যা করে। এ ঘটনায় আবরারের বাবা মো. বরকত উল্লাহ ৭ অক্টোবর ১৯ জনকে আ’সামি করে চকবাজার থানায় একটি হ’’ত্যা মা’মলা করেন। ২০১৯ সালের ১৩ নভেম্বর মা’মলার ত’দন্ত কর্মকর্তা গো’য়েন্দা পুলিশের (ডি’বি) পরিদর্শক (নিরস্ত্র) মো. ওয়াহিদুজ্জামান ২৫ জনের বি’রুদ্ধে আ’দালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

এরপর ২০২০ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি মা’মলার বিচারকাজ দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানোর জন্য ঢাকার মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটরের (পিপি) কার্যালয়ে আবেদন করেন মো. বরকত উল্লাহ। পরে ১২ মার্চ আইন, বিচার ও সং’সদবি’ষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক আবরার হ’’ত্যা মা’মলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানোর ফাইল অনুমোদন করেন।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    j

    z

    y

    x

    w

    u

    t

    s

    s

    ১০

    r

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com