আদালতে দাঁড়িয়ে মামুনুল হকের বি’রুদ্ধে যা যা বললেন ‘কথিত’ স্ত্রী জান্নাত - বাংলা একাত্তরআদালতে দাঁড়িয়ে মামুনুল হকের বি’রুদ্ধে যা যা বললেন ‘কথিত’ স্ত্রী জান্নাত - বাংলা একাত্তর

বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৫৪ পূর্বাহ্ন

আদালতে দাঁড়িয়ে মামুনুল হকের বি’রুদ্ধে যা যা বললেন ‘কথিত’ স্ত্রী জান্নাত

আদালতে দাঁড়িয়ে মামুনুল হকের বি’রুদ্ধে যা যা বললেন ‘কথিত’ স্ত্রী জান্নাত

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সাবেক যুগ্ম মহাস’চিব মামুনুল হকের বি’রুদ্ধে ‘কথিত’ স্ত্রী জান্নাত আরা ওরফে ঝর্ণা’র দা’য়ের করা ধ”ণের মা’মলায় সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। নারী ও শি’শু নি’র্যাতন ট্রাইব্যুনালের বিচারক নাজমুল হক শ্যামলের আ’দালতে বুধবার দুপুর সোয়া ১২টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত পৌনে দুই ঘণ্টা এই সাক্ষ্য দেন জান্নাত আরা।

সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বা’দী জান্নাত আরাকে জেরা করেন আ’সামিপক্ষের আইনজীবীরা। এর আগে সকাল ১০টার দিকে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে গাজীপুর জে’লার কাশিমপুর কা’রাগার থেকে মামুনুল হককে নারায়ণগঞ্জে নিয়ে আসা হয়।

আ’দালতে আ’সামিপক্ষের আইনজীবী বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ–আইনবি’ষয়ক সম্পাদক সৈয়দ মো. জয়নুল আবেদীন মেসবাহ্ বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমন কেন্দ্র করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে হেফাজতে ইসলামের দূরত্ব তৈরি হলে ষ’ড়যন্ত্রমূলকভাবে মামুনুল হকের বি’রুদ্ধে ধ”ণের এই মা’মলা করা হয়। বা’দীকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য পাঠানো হলেও তিনি রাজি হননি। সেখানে তিনি ডাক্তারের কাছে বলেছেন, কলেমা পড়ে মামুনুল হকের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়েছে। তবে তাঁর অনুমতি ছাড়াই ডিএনএ পরীক্ষা করানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ‘জান্নাত আরা বলেছেন, মামুনুল হক তাঁকে কলেমা পড়ে শরীয়ত মোতাবেক বিয়ে করেছেন। মামুনুল হকের কথায় তিনি ঢাকায় এসেছেন। তিনি এই শা’রীরিক সর্ম্পকের কথা কাউকে বলেননি। জেরায় বা’দী অনেক প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি। সে ক্ষেত্রে আমরা মনে করি, সফলতা পেতে পারি।’

নারী ও শি’শু নি’র্যাতন দ’মন ট্রাইব্যুনালের স’রকারি কৌঁসুলি রকিব উদ্দিন আহমেদ বলেন, গত ৩ এপ্রিল সোনারগাঁয়ের রয়েল রিসোর্টের একটি রুমে নিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জান্নাত আরাকে ধ”ণ করেন মামুনুল হক। এর আগে দুই বছর ধরে তাঁকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধ”ণ করছিলেন আ’সামি। আ’দালতে বা’দী আ’সামির বি’রুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছেন।

আ’সামিপক্ষের আইনজীবীরা আ’দালতে বারবার প্রমাণের চেষ্টা করেছেন, মামুনুল হকের স্ত্রী জান্নাত আরা। আ’সামিপক্ষের আইনজীবীরা বা’দীকে ৪১ বার প্রশ্ন করে জেরা করেছেন, কিন্তু বা’দী প্রতিবার বলেছেন, তাঁকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধ”ণ করা হয়েছে। জেরাকালে আ’সামিপক্ষের আইনজীবীরা মামুনুল হকের স্ত্রী জান্নাত আরা—এটা প্রমাণ করতে পারেননি। এই মা’মলার ৪৩ সাক্ষীর মধ্যে মা’মলার বা’দীর সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। আ’দালত পরবর্তী সময়ে সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ দেবেন।

নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান জানান, সকালে কড়া নিরাপত্তায় গাজীপুর হাই সিকিউরিটি কা’রাগার থেকে মামুনুল হককে নারায়ণগঞ্জে নিয়ে আসা হয়। সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে তাঁকে আবার গাজীপুর হাই সিকিউরিটি কা’রাগারে পাঠানো হয়। আ’দালতে বা’দীপক্ষের আইনজীবী ছিলেন জে’লা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোহাম্ম’দ মোহসীন মিয়া। তাঁকে সহায়তা করেন জে’লা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েলসহ ৩০ থেকে ৩৫ জন আইনজীবী।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে রয়েল রিসোর্টের একটি কক্ষে মামুনুল হককে নারীসহ অ’বরুদ্ধ করেন স্থানীয় ছাত্রলীগ-যুবলীগসহ লোকজন। পরে পুলিশ গিয়ে মামুনুল হককে জি’জ্ঞাসাবাদ করার সময় খবর পেয়ে হেফাজত ও মাদ্রাসার ছাত্ররা ওই রিসোর্টে হা’মলা চা’লিয়ে ভা’ঙচুর চা’লিয়ে তাঁকে পুলিশের কাছ থেকে ছি’নিয়ে নেন। পরে হেফাজতের নেতা–কর্মীরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ভা’ঙচুর চালান।

এ সময় তাঁরা মহাসড়কে টায়ার জ্বা’লিয়ে অ’গ্নিসংযোগ করেন। ভা’ঙচুর করেন শতাধিক যানবাহন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ভা’ঙচুর করেন। পুলিশ গিয়ে তাঁদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে হেফাজতের নেতা–কর্মীদের সঙ্গে পাল্টাপাল্টি ধা’ওয়া ও সং’ঘর্ষ বাধে। পুলিশ চার শতাধিক শর্টগান ও টিয়ারশেল ছু’ড়ে তাঁদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ ঘটনায় হেফাজতকর্মী মোহাম্ম’দ ফয়সাল বা’দী হয়ে মামুনুল হককে হে’নস্তা করার অ’ভিযোগে যুবলীগ-ছাত্রলীগের দুই নেতাসহ স্থানীয় ব্যক্তিদের বি’রুদ্ধে সোনারগাঁয়ে লিখিত অ’ভিযোগ দেন।

নারীসহ সোনারগাঁয়ে রয়েল রিসোর্টে মামুনুল হককে অ’বরুদ্ধ ও স’হিংস ঘটনার উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। একই সঙ্গে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অ’পরাধ) টি এম মোশাররফ হোসেনকে বদলি করা হয়। এর আগে ১৮ এপ্রিল মামুনুল হককে মোহাম্ম’দপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা থেকে ঢাকা মহানগর তেজগাঁও বিভাগের পুলিশ গ্রে’প্তার করে।

রয়েল রিসোর্ট কাণ্ডের ২৭ দিন পর ৩০ এপ্রিল সোনারগাঁ থানায় হাজির হয়ে কথিত স্ত্রী জান্নাত আরা নারী ও শি’শু নি’র্যাতন আইনে মামুনুল হকের বি’রুদ্ধে ধ”ণের মা’মলা করেন। ১০ সেপ্টেম্বর মামুনুল হকের বি’রুদ্ধে জান্নাত আরাকে ধ”ণের অ’ভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে অ’ভিযোগপত্র দাখিল করেন মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মকর্তা। ৩ নভেম্বর মামুনুল হকের বি’রুদ্ধে জান্নাত আরার দা’য়ের করা ধ”ণের মা’মলায় অ’ভিযোগ গঠন করেন আ’দালত।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com