মুশফিকের আয়নায় নিজের ভুল ধরা পড়ে না! - বাংলা একাত্তর মুশফিকের আয়নায় নিজের ভুল ধরা পড়ে না! - বাংলা একাত্তর

বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:৫৯ পূর্বাহ্ন

মুশফিকের আয়নায় নিজের ভুল ধরা পড়ে না!

মুশফিকের আয়নায় নিজের ভুল ধরা পড়ে না!

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ হেরে সংবাদ সম্মেলনে এসে সমালোচকদের আয়নায় মুখ দেখতে বলেছিলেন মুশফিকুর রহিম। বর্তমান প্রেক্ষাপটে কথাটা বোধহয় বুমেরাং হয়ে যাচ্ছে। নিন্দুকদের শত শত ভুল খুঁজে পেলেও মুশফিকরা কী নিজেদের ভুল খুঁজে পাচ্ছেন না?শ্রীলঙ্কার পর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেও নিশ্চিত জয়ের ম্যাচ হাতছাড়া হওয়ায় এটাই এখন বাস্তবসম্মত প্রশ্ন!ম্যাচের পর ম্যাচ হারায় ক্রিকেটারদের ঘিরে সমালোচনা হওয়াই স্বাভাবিক। কারণ, ক্রিকেটটা এখন আর বাংলাদেশ দলের একার সম্পত্তি নয়।

বাংলাদেশের কোটি মানুষের আবেগে পরিণত। ক্রিকেটাররা সেখানেও যখন আপত্তিজনক মন্তব্য করেন, তখন বোঝার অবকাশ থাকে না, ক্রিকেটের ২২ গজকে তারা স্বেচ্ছাচারিতার নিরাপদ ক্ষেত্র মনে করেন। নয়তো মুশফিক সমালোচনাকারীদের আয়নায় মুখ দেখার কথা কেনই বা বলবেন!

মুশফিকুর রহিম আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত আসরটিতে নেমেছিলেন টানা ছয়টি বিশ্বকাপ খেলার অভিজ্ঞতা নিয়ে। কিন্তু তার এই অভিজ্ঞতার ছিটেফোঁটাও দেখা যায়নি। আগের ছয় বিশ্বকাপের ছাঁয়া হয়েই আছেন অভিজ্ঞ এই উইকেটকিপার। অথচ অভিজ্ঞতার ঝাঁপি খুলে দলকে জয়ের বন্দরে নেওয়ার কথা মুশফিকের। কিন্তু স্বেচ্ছাচারিতায় বারবার একই ভুলে তা আর হচ্ছে কই?

সর্বশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মুশফিক যেভাবে দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় দিলেন, তাতে তার করা প্রশ্নই এখন বুমেরাং হয়ে সামনে আসছে- ম্যাচ শেষে মুশফিকও কি নিজের আয়নায় দাঁড়িয়ে ছিলেন? সেখানে কি ক্রিকেটপ্রেমী জনতার আবেগ-অনুভূতিগুলো দেখা যায় না? বাস্তবে মুশফিকদেরই বোঝার কথা ছিল তাদের ভুলগুলো হচ্ছে কোথায়।

কিন্তু বাংলাদেশ দলের ব্যাটসম্যানরা অন্যদের আয়নায় দেখতে বলাতেই বোধহয় ‘বাহাদুরি’ খুঁজে পাচ্ছেন।না হলে নিজেরা আয়নার সামনে দাঁড়ালে অন্তত একই ভুল বারবার হতো না।এবারের আসরে পরিস্থিতিটা এমন যে শুধু পুরো দল নয়, কেবল মুশফিকই আয়নার সামনে দাঁড়ালে নিজের ভুলগুলো নিজের চোখেই দেখতে পেতেন।

সুইপ, স্লগ সুইপ, রিভার্স সুইপ, প্যাডেল সুইপ, স্কুপ- এসব খেলতে পারা যেকোনও ব্যাটারদের জন্যই দারুণ স্কিলের পরিচয়। বাংলাদেশের অন্যতম সেরা ব্যাটার মুশফিক এই শটসগুলোতেই বহু রান করেছেন। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস হচ্ছে, এই শটগুলো খেলতে গিয়েই গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আউট হয়ে বাংলাদেশ দলকেও তিনি বিপদে ফেলছেন।

যেমনটি হয়েছে ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। টানা দুই ম্যাচে স্কুপ করতে গিয়ে আউট হয়েছেন। অথচ মুশফিক নিজের নির্ভুল সহজাত ক্রিকেটটা খেলতে পারলে বাংলাদেশের স্কোরবোর্ড সমৃদ্ধ হয়ে যায়।

শুক্রবার মুশফিক যখন আউট হন, তখন জয়ের পথেই ছিল বাংলাদেশ। ৩৯ বলে প্রয়োজন ৫৩ রান। ওভারের প্রথম বলেই রবি রামপালকে দারুণ শটে চার রান নিয়েছিলেন। কিন্তু এক বল বিরতি দিয়ে অহেতুক স্কুপ খেলে দলের বিপদের কারণ হয়ে ওঠেন তিনি। তাতে প্রশ্ন উঠছেই, ৭ বলে ৮ রানের ইনিংস খেলে যাওয়া মুশফিক ড্রেসিংরুমে ফিরে কার আয়নায় মুখটা দেখবেন?

কারণ, শুধু এবারই প্রথম নয়, ক্যারিয়ারে বহুবার গুরুত্বপূর্ণ সময়ে নিজের প্রিয় শটসগুলো খেলতে গিয়ে আত্মহুতি দেওয়ার রেকর্ড তার আছে। বলতে গেলে এই শটস খেলার অভ্যাসই মানসিক সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।নয়তো বারবার একই ভুল করে সাজঘরে ফেরার পরও কেন আত্মোপলব্ধি নেই তার। কারণটা, হয়তো আয়নার সামনে কেবল সমালোচকদেরই দাঁড়াতে হয়, মুশফিকদের নয়। কিন্তু বাস্তবতা বলছে আয়নায় নিজেদের ভুল নয়, সমালোচকরা পাচ্ছেন মুশফিকদের ভুলে ভরা ক্রিকেট।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com