সবদিক দিয়েই আমি ৩৪: সাংবাদিকদের নিকট সহজ স্বীকারোক্তি অপর্ণার

| আপডেট :  ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ | প্রকাশিত :  ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী অপর্ণা ঘোষ। ছোট পর্দা এবং বড় পর্দা উভয় ক্ষেত্রেই টিভি অভিনয় নৈপুণ্যে সকলের নজর কেড়েছেন তিনি। আর ২৫ সেপ্টেম্বর (সোমবার) ছিলো অপর্ণার জন্মদিন। এইদিন ৩৪ বছরে পা দিয়েছেন তিনি।

মূলত অপর্ণা ঘোষ ছোটবেলা থেকেই বেড়ে উঠেছেন থিয়েটারের পারিবারিক আবহে। বাবা অলোক ঘোষ চট্টগ্রামের থিয়েটার অঙ্গনে খুবই পরিচিত মুখ। তাই বাবার হাত ধরেই মূলত অভিনয়ের প্রতি আগ্রহ হয়েছিলো অপর্ণার।

সাধারনত নায়িকাদের অনেকেই তাদের বয়স লুকাতে পছন্দ করেন। অনেকের ধারণা, বয়স বাড়লে তাদের গ্ল্যামারে কমতি হবে। যদিও আমাদের শোবিজের পূর্নিমা, জয়া আহসানসহ অনেক তারকার বয়স বাড়ার সাথে সাথে গ্ল্যামার আরও বেশি দ্যুতি ছড়িয়েছে। তবে বয়স লুকানোর পক্ষে নন অভিনেত্রী অপর্ণা।

জন্মদিনে গণমাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, ‘আমি ৩৪ বছরে পা দিলাম। বিয়ে হয়েছে, এখন আর বয়স বলতে সমস্যা কী? তা ছাড়া আমি বয়স লুকানোর পক্ষেও নই।’

দুষ্টুমির ছলে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘আমার বয়স কিন্তু ১৮ (হাসি)। ২৪ তো পার হইতে চায়ই না (দুষ্টুমি করলাম)। আমি আসলে মনের দিক দিয়েও ৩৪, বয়সের দিক দিয়েও ৩৪, ম্যাচিউরিটির দিক দিয়েও ৩৪। সবদিক দিয়ে আমি ৩৪।’

বয়স বাড়ার সঙ্গে নিজের চিন্তার ধারা প্রসঙ্গে অপর্ণা বলেন, ‘বয়স বাড়া মানে ম্যাচিউরিটি বাড়া। আমি মনে করি, জীবনের প্রতিটা বছরের আলাদা একটা সৌন্দর্য আছে। একেকটা বছরের একেকটা সৌন্দর্য। প্রতিটা বছরই আমার কাছে নতুন মনে হয়। বয়স বাড়ার সঙ্গে অনেকে বলে না আরও ইয়াং হচ্ছি। আমার কাছে ওটা মোটেও কাজ করে না। আমার মনে হয় যে বয়স বাড়ছে, আমি নিজেকে এ বয়সে কীভাবে মেনটেইন করব, সেটাই গুরুত্বপূর্ণ।’

প্রসঙ্গত, অপর্ণার বেড়ে উঠা চট্টগ্রাম শহরে। চট্টগ্রামের জিইসির মোড় এলাকায় তার বাসা। ২০০৬ সালে লাক্স সুপারস্টার প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে সেরা চারের একজন ছিলেন তিনি। তারপর চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় এসে কিছু টিভি নাটকে অভিনয় করেছেন। ২০০৯ সাল থেকে কাজের চাপ বেড়ে যাওয়ায় স্থায়ীভাবে ঢাকায় থাকা শুরু করেন এই অভিনেত্রী।

পরবর্তীতে, ২০১৪ সালে জাহিদুর রহিম অঞ্জন পরিচালিত মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সরকারি অনুদানের চলচ্চিত্র ‘মেঘমল্লার’ সিনেমায় অভিনয় করে বড়পর্দায় যাত্রা শুরু করেন। এরপর অভিনয় করেন প্রসূন রহমান পরিচালিত ‘সুতপার ঠিকানা’ সিনেমায়। দুটো সিনেমায় অভিনয় নৈপুণ্যে দারুণ আলোচিত হন অপর্ণা। এছাড়া, ‘মৃত্তিকা মায়া’ চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রীর জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন তিনি। তার অভিনীত অন্যান্য চলচ্চিত্রগুলো হলো- দর্পণ বিসর্জন, ভুবন মাঝি।