শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৩৯ অপরাহ্ন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কাঁপালো হেফাজতে ইসলামের সমাবেশ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কাঁপালো হেফাজতে ইসলামের সমাবেশ

ফরাসি ম্যাগাজিন শার্লি এবদো কর্তৃক বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছিলো হেফাজতে ইসলাম। আর এরপর সোমবার সকাল থেকেই জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম এলাকায় জড়ো হতে থাকেন মুসল্লিরা এবং একসময় এই কর্মসূচিতে ঢল নামে ধর্মপ্রাণ মুসলিমদের। মতিঝিল-পল্টন এলাকা কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে ওঠে। এমনকি নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরাও মোনাজাতে অংশগ্রহণ করেন। ইতোমধ্যে এ সমাবেশের ছবি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ফেসবুকজুড়ে প্রশংসা কুড়োচ্ছো এই শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ সমাবেশ।

বিশিষ্ট সাংবাদিক, কলামিস্ট ও গবেষক মেহেদী হাসান পলাশ তার ফেসবুক স্টাটাসে লিখেছেন, ‘‘শেষ কবে বাংলাদেশ এত বৃহৎ জনসমাবেশ হতে দেখেছেন? এমনকি বিএনপি-আওয়ামী লীগের মত বড় রাজনৈতিক দলেরও এমন সমাবেশ শেষ কবে দেখেছেন?”

স্টাটাসে তিনি আরও লিখেছেন “ও হ্যাঁ, এটা কিন্তু বিরানির প্যাকেট বা শেরাটনের খাবারের লোভে আসা সমাবেশ নয়, খাই খরচ, রাহা খরচ, কামলা খরচ দিয়ে আনা লোকের সমাবেশ নয়; রসুলের প্রেমে, রসুলের(সা.) অসম্মানের প্রতিবাদে নিজের জান, মাল ও শ্রম খরচ করে আসা লোকের সমাবেশ। এত লক্ষ লক্ষ লোকের সমাবেশ, অথচ কি শান্তিপূর্ণভাবে সমাপ্ত হল!! এটাই ইসলাম, এটাই বাংলাদেশ, রসূল (সা.) প্রেমী মানুষের বাংলাদেশ, এটাই বাংলাদেশের ইসলাম। যারা বোঝে না, বুঝতে চায় না, সেটা তাদের সীমাবদ্ধতা। কিন্তু বাংলাদেশে থেমে থাকবে না!’’

পুলিশদের প্রশংসা করে আবুল হাসানাত কাসিম লিখেছেন, ‘‘জনগণ ও প্রশাসনের সম্মিলিত, শান্তি ও সম্প্রীতিপূর্ণ আজকের সমাবেশ ছিল স্মরণকালের সবচেয়ে সুন্দর আর পরিপাটি। পুলিশ ভাইদেরকে দেখেছি- আল্লাহু আকবারের শ্লোগানে আমাদের সাথে যোগ দিতে।’’

এছাড়া, নয়ন মুরাদ নামে আরেকজন লিখেছেন, ‘‘প্রতিটি মুসলিম হৃদয়ে নবীপ্রেম জাগ্রত। হাতেগোনা কতিপয় লোকের বিদ্বেষে নবী প্রেমিকদের কিচ্ছু যায় আসে না। (বি. দ্র. কারা কোন ব্যানারে প্রতিবাদ করছে, সেটা বড় বিষয় নয়। যে যার অবস্থান থেকে প্রতিবাদ করছে এটাই বড় বিষয়।”

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com