অ’সহায় বি’ধবার ঘরে তালা ঝুলালো স্বামীর ভাতিজারা - বাংলা একাত্তরঅ’সহায় বি’ধবার ঘরে তালা ঝুলালো স্বামীর ভাতিজারা - বাংলা একাত্তর

শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:১৮ অপরাহ্ন

অ’সহায় বি’ধবার ঘরে তালা ঝুলালো স্বামীর ভাতিজারা

অ’সহায় বি’ধবার ঘরে তালা ঝুলালো স্বামীর ভাতিজারা

কামরুজ্জামান মিনহাজ: ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজে’লার দেওয়ানীবাড়ি গ্রামের এক অ’সহায়, বিধবা মহিলার ঘরে তালা ঝু’লিয়ে দিয়ে জমি দ’খল করে নেওয়ার চেষ্টার অ’ভিযোগ উঠেছে স্বামীর ভাতিজাদের বি’রুদ্ধে। এ ঘটনায় ত্রিশাল থানায় ওসি বরাবর লিখিত অ’ভিযোগ দিয়েছেন সুফিয়া আক্তার।

ঐ গ্রামের মৃ’ত ফজলুর রহমানের স্ত্রী ৭৬ বছর বয়সী সুফিয়া আক্তার তার লিখিত অ’ভিযোগে উল্লেখ করেন, ২০০৮ সালে তার স্বামী মা’রা যান । তাদের দুইজন কন্যা রয়েছে । স্বামীর জীবদ্দশায় অর্থাৎ বেঁচে থাকতেই মেয়েদের বিয়ে দেন এবং মেয়েদের নামে হেবা দলিলের মাধ্যমে জমি জমা লিখে দিয়ে যান ।

মেয়ারা উচ্চ শিক্ষিত । ফজলুর রহমানের মৃ’ত্যুর পর তার অর্থাৎ স্বামীর বাড়িতেই সুফিয়া আক্তারের বসবাস । স্বামীর ভিটায় পুকুরে মাছ চাষ আর জমি- জমা চাষাবাদ করে তার সংসার চলে যায়। সম্প্রতি তার সম্পত্তির উপর নজড় পড়ে স্বামীর ভাতিজাদের।

ফজলুর রহমানের ভাতিজারা হলেন, কামরুল ইসলাম উজ্জ্বল, রফিকুল ইসলাম পলা’শ , তারিকুল ইসলাম বাবু , সারোয়ার ইসলাম সাগর, লুৎফর রহমান সেলিম, আব্দুর রহমান গং । সর্ব পিতা মৃ’ত ঈসমাইল হোসেন স’রকার ।

সাং – দেওয়ানীবাড়ি উপজে’লা, ত্রিশাল । সুফিয়া আক্তার ত্রিশাল থানায়( ২৭ জুলাই) একটি অ’ভিযোগ করেন, উপরোক্তরা অর্থাৎ স্বামীর ভাতিজারা তাকে ভ’য়ভীতি প্রদর্শণ , হু’মকি- ধমকি দিয়ে ঘর থেকে তাকে জোপূর্বক বের করে দিয়েছে । বাড়ি ঘরে হা’মলা চা’লায় এবং তার জমি দ’খলের চেষ্টা করছেন।

সুফিয়া আক্তার বলেন, আ’দালতের কোন নি’ষেধাজ্ঞা না থাকা সত্ত্বেও রাতারাতি সাইনবোর্ড লাগিয়ে দ’খলের চেষ্টা করেন।বিবদাী গং আ’দালতে সিআর মা’মলা করেই তার রেফারেন্স লিখে সাইনবোর্ড টানিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। থানা পুলিশ আ’দালতের নির্দেশে সিআর মোকদ্দমায় আইন-শৃংখলা রক্ষায় উভ’য় পক্ষকে নোটিশ করে। ঐ নোটিশকে বৃ’দ্ধাঙ্গু’লি দেখিয়ে সুফিয়ার স্বামীর ভাতিজারা আ’দালতের নাম উল্লেখ না করে জালিয়াতির মাধ্যমে তার বসতঘরের দরজায় তালা ঝু’লিয়ে দেয় । এক পর্যায়ে তাকে তার বাড়ি থেকে বিতাড়িত করার চেষ্টা করে । দুইদিন ঘরে ঢুকতে না পেয়ে দরজার বাইরে বসে অঝোরে কা’ন্না আর বিলাপ করে যাচ্ছেন সুফিয়া আক্তার ।

প্রতিবেশীদের প্রশ্ন করে বলেন, আমি কোথায় যাব । কার কাছে যাব। বাবারা মায়েরা তোমরা আমার ঘরের দরজা খোলার ব্যবস্থা করে দাও । তার গগন বিদারী বিলাপ শুনে গ্রামের মানুষজন দুইদিন ধরে তাকে সান্তনা দিয়ে যাচ্ছেন । যদিও স’ন্ত্রাসী প্রকৃতির ভ’য়ংকর তার স্বামীর ভাতিজাদের ভ’য়ে কেউ দরজা খুলে দিচ্ছে না ।

জানা গেছে, কামরুল ইসলাম উজ্জল গং স্থানীয়ভাবে একটি রাজনৈতিক দলের আশির্বাদপুষ্ট । দলীয় পরিচয় দিয়ে তারা আরো নিরীহ মানুষের জমি দ’খল, লু’টপাট, ভাং’চুর ও হা’মলার মত ঘটনা ইতিপূর্বেও ঘটিয়েছে ।

এব্যাপার কামরুল ইসলাম উজ্জল জানান, জমি দ’খলে আ’দালতের কোন আদেশ নাই, কিন্তু উকিল সাহেব বলেছেন।তিনি আরও বলেন ত্রিশালের এমপি সাহেবকে বলেই সাইবোর্ড লাগিয়েছি। চাচার সম্পত্তিতে আমাদেরও ভাগ আছে । আজ সন্ধ্যায় ঘরের দরজার তালা খুলে দিব । সাইনবোর্ডও খুলে দেব । এটা আামাদের ভু’ল হয়েছে ।

ত্রিশাল থানার ওসি মাইন উদ্দিন জানান, সুফিয়া খাতুনের লিখিত অ’ভিযোগ পেয়েছি । ঘটনাস্থলে শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ পাঠিয়েছি । অ’পরাধী সে যেই হোক না কেন , তার বি’রুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com