শনিবার, ২৪ Jul ২০২১, ১২:৫০ পূর্বাহ্ন

৩৭ কেজির ‘মেসি’র দাম হাঁকা হচ্ছে ১০ লাখ!

৩৭ কেজির ‘মেসি’র দাম হাঁকা হচ্ছে ১০ লাখ!

বয়স চার বছর হলেও ওজনে মাত্র ৩৭ কেজি। তবে একবার ছুটতে শুরু করলে তাকে কোনো ব্যক্তির একা আটকে রাখা সম্ভব হয় না। ব্যতিক্রমী এই ষাঁড়টির নাম ‘মেসি’। ধারণা করা হচ্ছে এটি দেশের সবচেয়ে খর্বাকৃতির ষাঁড়। ষাঁড়টির মালিক নেত্রকোনার আজিজুর রহমান শখের বশে বছরখানেক আগে কিনেছিলেন। পরবর্তীতে তিনি আর্জেন্টিনার সমর্থক হওয়ায় ষাঁড়টির নাম রেখেছিলেন মেসি।

ব্যতিক্রমী এ ষাঁড়টির উচ্চতা মাত্র ২৭ ইঞ্চি আর দৈর্ঘ্য ২৪ ইঞ্চি। ইতোমধ্যে ষাঁড়টির কথা জানতে পেরে আশেপাশের অনেকেই ষাঁড়টি দেখতে ভিড় করছেন। কেউ কেউ ষাঁড়টি কেনার আগ্রহও প্রকাশ করেছেন। তবে ওজন উচ্চতা যা–ই হোক, মেসির দাম ১০ লাখ টাকা হাঁকছেন আজিজুর।

আজিজুরের বলছেন, ইতিমধ্যে মেসির দাম উঠেছে ৪ লাখ টাকা। আর চার বছর বয়সের এটাই দেশের সবচেয়ে ছোট ষাঁড় বলে দাবি করছেন আজিজুল। জাহিদ হাসান নামের এক ব্যক্তি জানান, তিনি ষাঁড়টির খবর পেয়ে নেত্রকোনার নাগড়া এলাকা থেকে এসেছেন। শৌখিন জাহিদ হাসান ষাঁড়টি কিনতে চান। কিন্তু মালিক দাম বেশি চাওয়ায় তিনি পিছিয়ে গেছেন। তিনি বলেন, ‘এ রকম ষাঁড় আমি আর কখনো দেখিনি। শুনেছি ষাঁড়টি বিক্রি হবে। দাম নাগালের মধ্যে থাকলে কিনে নিতাম। কিন্তু মালিক ১০ লাখ টাকা দাম চাচ্ছেন।’

মেসির মালিক আজিজুর বলেন, ‘আমি খালিয়াজুরিতে চাকরি করি। সেখানে আসা-যাওয়ার পথে খর্বাকৃতি ষাঁড়টির সন্ধান পাই। মদন উপজেলার জাহাঙ্গীরপুর থেকে এক বছর আগে শখের বশে এটি ৪০ হাজার টাকা দিয়ে কিনেছিলাম। বাড়িতে এনে এটির ক্ষিপ্রগতি দেখে প্রিয় ফুটবল তারকার নামের সঙ্গে মিলিয়ে মেসি নাম রেখেছি। গত মাসে উপজেলা প্রাণিসম্পদ মেলায় মেসিকে প্রদর্শন করা হলে বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে যায়। এখন প্রতিদিন মানুষ ষাঁড়টি দেখতে আসে।’

কমলপুর গ্রামের কৃষক রকিবুল ইসলাম বলেন, ‘গরুডা আকারে ছুডু (ছোট) হইলেও দৌড়ে সেরা। এর শক্তিও বিরাট। ছাড়া পাইলে সহজে ধরন যায় না। ধইরা রাখতে দুইজন মানুষ লাগে।’

আজিজুর জানান, গত মাসে মাহবুব আলম নামের এক খামারি এটিকে কিনতে চার লাখ টাকা দাম করেছেন। কিন্তু তিনি বিক্রি করেননি। ১০ লাখ টাকা হলে বেচে দেবেন। আজিজুর মনে করেন, দেশে এই বয়সী খর্বাকৃতির ষাঁড় আর নেই। তিনি এটির নাম গিনেস বুকে তুলতে চান।

ষাড়টির বিষয়ে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মনোরঞ্জন ধর বলেন, গরুটি দেশি জাতের। এর জন্ম দেওয়া গাভিটি স্বাভাবিক ছিল তবে এটি ওই গাভির ৩ নম্বর বাছুর ছিল। জন্মগত ত্রুটির কারণে এমনটি হয়ে থাকতে পারে।

প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগে সাভারের আশুলিয়ায় বিশ্বের সবচেয়ে ছোট গরুর সন্ধান পাওয়া যায়। গরুটির নাম রানি। উচ্চতা ২০ ইঞ্চি, লম্বায় ২৭ ইঞ্চি, ওজন ২৬ কেজি এবং বয়স দুই বছর।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com