বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৭:২১ পূর্বাহ্ন

আমার স্ত্রী বলে আমি নাকি তার বাচ্চার বাবা হওয়ার যোগ্য না: নোবেল

আমার স্ত্রী বলে আমি নাকি তার বাচ্চার বাবা হওয়ার যোগ্য না: নোবেল

সারেগামাপা শো এর মাধ্যমে জনপ্রিয়তা লাভ করা সঙ্গীতশিল্পী মাইনুল আহসান নোবেল একের পর এক বিতর্কিত কান্ডের জেরে সবসময়ই সমালোচিত থাকেন। আর এবার এই সঙ্গীতশিল্পী আলোচনায় এসেছেন পিতৃত্বের দাবি করে।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে নোবেল লিখেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ। হয়তো আমরা মা-বাবা হতে চলেছি। কিন্তু নোবেলের এই দাবিকে নাকচ করে দেন তার স্ত্রী সালসাবিল মাহমুদ। তিনি বলেন, আমি প্রেগন্যান্ট নই। এরই প্রেক্ষিতে নোবেল শুক্রবার ফের নিজের বক্তব্য ফেসবুকে প্রকাশ করেছেন।

নোবেল তার ফেসবুক স্টাটাসে লিখেন, ‘মাতৃত্ব কেবল মাত্র একজন নারীর জন্যই পবিত্র কিংবা সম্মানের বিষয় নয়। একজন পুরুষের জন্যেও অত্যন্ত আনন্দের এবং খুব গর্বের একটি বিষয়। এগুলো নিয়ে কেউ মিথ্যাচার করেনা। একটি শিশুকে ১০ মাস ১০ দিন গর্ভে ধারণ করেন মা। কিন্তু শিশুর পিতা কিন্তু সেই মা-কে ১০ মাস বুকে আগলে রাখে। আমার স্ত্রী, সালসাবিল তার অন্তসত্ত্বা হবার লক্ষণগুলো আমার সাথে শেয়ার করেন এবং তার ফলশ্রুতিতে আমি এক্সাইটেড হয়ে স্টেটাসটি গণমাধ্যমে প্রকাশ করি।

এসময় তিনি সকলের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন রাখেন, “সম্ভব্য পিতা হিসেবে বিষয়টা কি স্বাভাবিক নয়? আপনি বাবা হবার ইঙ্গিত পেলে নিজে কি করতেন বলুন? আমি মাত্র ২৩ বছর বয়সে বাবা হবার খুশি ধরে রাখতে পারিনি।’

তাকে হুমকি দেওয়া হয়েছে দাবি করে নোবেল বলেন, ‘স্টেটাসটি দেয়ার কিছুক্ষণের মধ্যে আমার স্ত্রী, সালসাবিল আমাকে ফোন করে বাচ্চা “এবর্শন” করে ফেলবে, এই হুমকি দেয়। কারণ আমি নাকি তাঁর বাচ্চার বাবা হবার যোগ্য না। আমার অনেক হেটার্স! অনেক কন্ট্রোভার্সি। ব্যাংক ব্যালেন্স এই মুহূর্তে একটু কম। যেহেতু আমাদের শিল্পীদের গত বছর মার্চ থেকে “লাইভ কন্সার্ট” বন্ধ। তাছাড়া দুজন প্রাপ্তবয়ষ্ক ছেলে-মেয়ে স্বসম্মতিতে বিয়ে করেছি, তাই আমার স্ত্রীর পিতৃপক্ষ কোনভাবেই আমাদের বিয়ে টিকতে দেবেনা। এমনকি আমার ঘরের তালা ভেঙে ঘরে ঢুকে আমাকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করা হয়েছে।

সম্ভাব্য শিশুটিকে খুন করা হয়ে থাকতে পারে। এমন আশঙ্কাও নোবেল প্রকাশ করেছেন। নোবেল বলেন, যদিও আমি আমার স্ত্রীকে মেডিকেল টেস্ট করবার আগেই আনন্দে উৎফুল্ল হয়ে স্টেটাসটি দেই। মেডিকেল করলে হয়তো পজিটিভই আসতো। তবে যানিনা এতক্ষনে আমার সম্ভব্য বাচ্চাটি জীবিত আছে নাকি “পিলস” খেয়ে শিশুটির মা শিশুটিকে খুন করেছে। তবে কয়েকটি মাস পর যে শিশু বা ফেরেস্তাটি পৃথিবীর আলো দেখতো, আমার প্রাণ চলে গেলেও আমি তার প্রাণহানি হতে দিতাম না।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ১৫ নভেম্বর নোবেলের সঙ্গে পরিণয়সূত্রে আবদ্ধ হন সালসাবিল মাহমুদ। বিষয়টি গোপন থাকলেও গত বছর প্রকাশ্যে আসে। নিজের একটি গানের মডেল হিসেবেও সালসাবিলকে যুক্ত করেন। এরপর নোবেলের সঙ্গে সর্বশেষ পাবনা ও কুষ্টিয়া ভ্রমণে সালসাবিলকে দেখা যায়।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com