রবিবার, ১৩ Jun ২০২১, ০২:৪৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
সাকিব ইস্যুতে ফেঁসে যাচ্ছেন আম্পায়াররা সাভারে পোশাক শ্রমিকদের অ’বরোধ-বি’ক্ষোভে পুলিশের গু’ লি, না’রী নি’হত গো’পনে ফি’লিস্তিনের দুই গো’য়েন্দা কর্মকর্তাকে গু’লি করে হ’ ত্যা করল ই’সরাইল দিনদুপুরে মা-ছে’লেসহ তিন জনকে গু’ লি করে পা’লানোর সময় সেই ঘা’ তককে ধরে পুলিশে দিলেন জনতা প্র’কাশ্যে দোকানে ঢুকে স্বামী-স্ত্রীসহ ছেলেকে গু” লি করে হ’ ত্যা ই’সরাইলি ড্রো’ন তৈরির ফ্যাক্টরি দ’খলে নিয়েছে ফি’লিস্তিনিরা! নেতানিয়াহু বি’রোধী বি’ক্ষো’ভে উত্তাল ই’সরায়েল ‘ফোন দিলে অবস্থা খারাপ হবে’ বলেই সার্জেন্টকে মা’র’ধ’র, নিজেকে ছাত্রলীগ কর্মী বলে পরিচয় বে’ইজ্জতি চ’রমে পৌঁছে গেছে, ভ’য়ে ফোন ধরছি না: পাপন নে’তানিয়াহুর জন্য ১০ বছরের কা’রাদ’ণ্ড অপেক্ষা করছে: ই’সরাইলি আইনজীবী
ওরা বলেছে রোজিনাকে মাটির নিচে পুঁ’তে ফেলবে: ছোট বোন

ওরা বলেছে রোজিনাকে মাটির নিচে পুঁ’তে ফেলবে: ছোট বোন

আপনি অনেক নিউজ করেছেন অনেক লেখালেখি করেছেন আপনাকে এখন মাটিতে পুঁতে ফেলব। সোমবার (১৭ মে) প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে স’চিবালয়ে আ’টকিয়ে রেখে এভাবে মে’রে ফেলার হু’মকি দেওয়া হয় বলে অ’ভিযোগ করেন তার ছোট বোন সাবিনা ইয়াসমিন জুলি।

সোমবার (১৭ মে) রাতে বোনের সঙ্গে দেখা করে রাজধানীর শাহবাগ থানায় তিনি সাংবাদিকদের সাবিনা ইয়াসমিন জুলি এসব কথা বলেন।

সাবিনা ইয়াসমিন জুলি বলেন, রোজিনা ইসলাম আমার বড় বোন। আমি প্রথম জানতাম না কি হয়েছে। পরে থানায় এসে আপার সঙ্গে কথা বলে সব শুনেছি। বোন আজকে টিকা নিয়েছে সে খুব অ’সুস্থ। এখন দেখলাম তার গায়ে অনেক জ্বর। টিকা নেওয়ার পর স’চিবালয়ে যায়। সেখানে তার সঙ্গে সোর্সের দেখা করতে। দেখা হওয়ার পর সোর্স আমার বোনকে কিছু ডকুমেন্ট দেয়।

তিনি বলেন, ডকুমেন্ট পাওয়ার পর তখন তিনি স্বা’স্থ্য স’চিবের রুমে যাওয়ার জন্য বাইরে অপেক্ষমাণ কনস্টেবল মিজানকে জিজ্ঞেস করে ভিতরে কেউ আছে কি-না। তখন মিজান বোনকে বলে ভেতরে কেউ নেই, আপনি ভেতরে গিয়ে বসেন। তখন আমার বোন বলে আমি ভেতর যাব না, আমি তথ্য নিতে এসেছিলাম। তারপর মিজান বলে, আপনি রুমের ভেতর বসেন। স্যার এখনি চলে আসবেন। এই কথা বলে মিজান আমার বোনকে রুমের ভেতরে বাসায়।

রোজিনা ইসলামের ছোট বোন বলেন, কক্ষে বসে আপা একটি পত্রিকা পড়ছিলেন। তখন কনস্টেবল মিজানসহ আরও কয়েকজন আপার ব্যাগ কেড়ে নেয়। তখন তারা বোনকে হু’মকি দিয়ে বলে এতদিন অনেক নিউজ ও লেখালেখি করেছেন আপনাকে মাটির মধ্যে পুঁতে ফেলব। পরে বোনকে ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা স’চিবালয়ে আ’টকে রাখা হয়।

তিনি বলেন, আমার বোন পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য স’চিবালয়ে গিয়েছিল। কিন্তু তাকে অনেক হ’য়রা’নি করা হয়েছে। কনস্টেবল মিজানসহ ছয়-সাত জন আপাকে ঘিরে রাখে। মিজান তাকে মা’রতে গিয়েছিল। পরে তারা আমার আপার কাছ থেকে মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়। পরে তারা বোনের ব্যাগের মধ্যে কিছু কাগজ ঢুকিয়ে দিয়ে তার বি’রুদ্ধে মি’থ্যা অ’পপ্রচার করছে।

কোন পর্যায়ে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের ব্যাগের ভেতরে কাগজ ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে সাবিনা ইয়াসমিন জুলি বলেন, এত কিছু আমি বলতে পারব না। যেহেতু আমি সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গে জড়িত নই। ব্যাগের মধ্যে কাগজ ঢুকিয়ে দিয়ে তারা বলে আমরা দেখে নেব।

সাবিনা ইয়াসমিন জুলি আরও বলেন, স্বা’স্থ্য খাতের কিছু অনিয়ম নিয়ে প্রতিবেদন করার পর থেকে বোনকে বিভিন্নভাবে হু’মকি দেওয়া হচ্ছিল। তবে এখন বোনের শা’রীরিক অবস্থা ভালো না। আমার বোনের চিকিৎসার প্রয়োজন। তাকে যদি এখন চিকিৎসা দেওয়া না হয় তাহলে তার শরীরটা আরও খা’রাপ হয়ে যাবে। আমরা খুবই উৎকণ্ঠার মধ্যে আছি।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com