রবিবার, ১৩ Jun ২০২১, ০২:৩৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
সাকিব ইস্যুতে ফেঁসে যাচ্ছেন আম্পায়াররা সাভারে পোশাক শ্রমিকদের অ’বরোধ-বি’ক্ষোভে পুলিশের গু’ লি, না’রী নি’হত গো’পনে ফি’লিস্তিনের দুই গো’য়েন্দা কর্মকর্তাকে গু’লি করে হ’ ত্যা করল ই’সরাইল দিনদুপুরে মা-ছে’লেসহ তিন জনকে গু’ লি করে পা’লানোর সময় সেই ঘা’ তককে ধরে পুলিশে দিলেন জনতা প্র’কাশ্যে দোকানে ঢুকে স্বামী-স্ত্রীসহ ছেলেকে গু” লি করে হ’ ত্যা ই’সরাইলি ড্রো’ন তৈরির ফ্যাক্টরি দ’খলে নিয়েছে ফি’লিস্তিনিরা! নেতানিয়াহু বি’রোধী বি’ক্ষো’ভে উত্তাল ই’সরায়েল ‘ফোন দিলে অবস্থা খারাপ হবে’ বলেই সার্জেন্টকে মা’র’ধ’র, নিজেকে ছাত্রলীগ কর্মী বলে পরিচয় বে’ইজ্জতি চ’রমে পৌঁছে গেছে, ভ’য়ে ফোন ধরছি না: পাপন নে’তানিয়াহুর জন্য ১০ বছরের কা’রাদ’ণ্ড অপেক্ষা করছে: ই’সরাইলি আইনজীবী
পরকীয়ার এসএমএস দেখে ফেলাতেই খুন হতে হয় মিতুকে

পরকীয়ার এসএমএস দেখে ফেলাতেই খুন হতে হয় মিতুকে

২০১৬ সালের ৫ জুন সন্তানকে বাসে তুলে দিতে গিয়ে দূর্বত্তদের হাতে খুন হন সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আকতারের স্ত্রী মাহমুদা মিতু। আর দীর্ঘ ৫ বছর পর এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে বাবুল আকতারই এই হত্যাকান্ডের মূল পরিকল্পনাকারী।

জানা গেছে, মূলত হ’ত্যাকাণ্ডের ৭ মাস আগে পরকীয়া প্রেমের এসএমএস নিয়ে বাবুল আখতারের স্ত্রী মিতুর সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি ঘটে। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে বাবুল আখতারের মোবাইল ফোন থেকে মিতু আপত্তিকর কিছু এসএমএস দেখতে পান। সেখানে গায়েত্রী এম্মার্সিং নামের এক ভারতীয় নারীর সঙ্গে তার শারীরিক সম্পর্কের তথ্য জানতে পারেন মিতু। আর এ নিয়ে বাবুল-মিতুর মধ্যে প্রতিদিনই ঝ’গড়া হতো।

মিতুর পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ১৫ সালের ডিসেম্বরের এক বাবুল আখতার বিছানার ওপর মোবাইল ফোন রেখে বাথরুমে যান। এ সময় বাবুলের মোবাইলে একটি এসএমএস আসলে মিতু এসএমএসটি চেক করে দেখতে পান একটি আপত্তিকর বার্তা। তখন মিতু মোবাইলটির সুইচ বন্ধ করে বাসার স্টোর রুমে ফোনটি লুকিয়ে রাখেন।

পরবর্তীতে বাবুল আখতার ফোন খোঁজাখুঁজি করলে মিতু ফোনের কথা পুরোপুরি অস্বীকার করেন এবং বাবুল বাসা থেকে বের হলে মিতু মোবাইলের সিম বের করে মোবাইলটি অন করেন। এরপর ওই মোবাইল থেকে একে একে ২৯টি এসএমএস (ক্ষুদে বার্তা) পড়ে এসএমএসগুলো প্রমাণ হিসেবে ছেলের ছবি আঁকার আর্ট পেপারে লিখে রাখেন।

এদিকে মোবাইল না পেয়ে বাবুল আখতার ট্র্যাকিং করে নিশ্চিত হন, তার মোবাইল ফোনটি বাসাতেই রয়েছে। এই মোবাইল ফোন নিয়ে তাদের মধ্যে সম্পর্কের আরও অবনতি ঘটে। আর এই ঘটনার প্রায় সাত মাস পরেই ঘটে মিতু হত্যাকাণ্ড। সোর্সকে তিন লাখ টাকা প্রদানের মাধ্যমে বাবুল আকতারই ওই হত্যাকাণ্ড ঘটান।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Comments are closed.

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 banglaekattor.com